চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সারাবিশ্বে করোনায় মৃত্যু ২ লাখ ৫০ হাজার ছাড়িয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রে কমেছে মৃত্যু

চীন থেকে শুরু হলেও বিশ্ব মহামারী করোনাভাইরাসের কেন্দ্রস্থল এখন যুক্তরাষ্ট্র। মৃত্যু এবং আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকলেও গত একমাসের মধ্যে ২৪ ঘণ্টায় যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে কম মৃত্যু হয়েছে ৪ মে। এদিন দেশটিতে মারা গেছে ১ হাজার ৩২৪ জন। আর সারাবিশ্বে মৃত্যু আড়াই লাখ ছাড়িয়েছে। 

আশার মুখ দেখতে থাকলেও সোমবার পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে মোট মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৭০ হাজার (৬৯ হাজার ৯২১)।এবং দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১২ লাখ ছাড়িয়েছে, যা সারাবিশ্বের মোট আক্রান্তের এক তৃতীয়াংশ।

বিজ্ঞাপন

বিশ্বে মোট করোনায় আক্রান্ত এখন ৩৬ লাখের অধিক, আর মৃত্যুবরণ করেছে প্রায় ২ লাখ ৫২ হাজার।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় ১ হাজার ৩২৪  মারা গেছে। গত একদিনে মোট আক্রান্ত হয়েছে ২৪ হাজার ৭১৩ জন। সব মিলিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১২ লাখ ১২ হাজার ৮৩৫ জন। সুস্থ হয়েছে ১ লাখ ৮৮ হাজার ২৭ জন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৯ লাখ ৫৪ হাজার ৮৮৭ জন। এদের মধ্য ১৬ হাজার ৫০ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

করোনাভাইরাস বিস্তারের আশঙ্কা সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি অঙ্গরাজ্যের অর্ধেকেরও বেশি এখন লকডাউনের পদক্ষেপ শিথিলের কথা বিবেচনা করছে। রিপাবলিকান গভর্নর থাকা অঙ্গরাজ্যগুলো দ্রুত খুলে দেওয়া হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আগামী নভেম্বরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পুনর্নির্বাচিত হতে অর্থনৈতিক সংকট কাটিয়ে ওঠার ওপর ব্যাপকভাবে নির্ভর করছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত রোববার অঙ্গরাজ্যগুলো খুলে দেওয়ার পক্ষে কথা বলেন রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

এরই মধ্যে সোমবার অভ্যন্তরীণ নথি পর্যালোচনা করে মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমস সতর্ক করে বলেছে, অর্থনীতি সচল করে দেওয়া হলে আগামী ১ জুন নাগাদ দেশটিতে প্রতিদিন তিন হাজার মানুষের মৃত্যু হতে পারে।