চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সারাবছর ‘সিক্স প্যাক’ বয়ে বেড়াতে চাই না: শুভ

দেশের নায়কদের মধ্যে প্রথম সিক্স প্যাক করে হইচই ফেলে দিয়েছেন তারকা অভিনেতা আরিফিন শুভ। নেটিজনরাও শুভর এ কাজটি প্রশংসা করেছেন। ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছবির এ নায়ক জানান, তিনি সারাবছর এই সিক্স প্যাক বয়ে বেড়াতে চান না।

নতুন ছবি ‘মিশন এক্সট্রিম’ এর জন্য সিক্স প্যাকে এসেছিলেন শুভ। তাও গতবছরের ঘটনা। সম্প্রতি সেই সিক্স প্যাকে আসার মূহুর্তগুলো ভিডিও আকারে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ করেন এ নায়ক।

বিজ্ঞাপন

যা প্রকাশের পরেই শোরগোল পড়ে যায়। তারপর শুভ তার ফেসবুক পেইজ থেকে লাইভে এসে বলেন, সারাবছরই সিক্স প্যাক নিয়ে ঘুরব এই ভাবনা অমূলক। কারণ আমি সবসময় একই ধরনের চরিত্রে অভিনয় করতে চাইনা। আমি ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে কাজ করতে ইচ্ছুক। এটাই একজন অভিনয় শিল্পীর কাজ।

বিজ্ঞাপন

আমি কোনো বডি বিল্ডার নই। ক্ষুদ্র একজন অভিনয় শিল্পী। পৃথিবীর বড়মাপের অভিনয় শিল্পী ২০-৩০-৪০ বছর ধরে অভিনয় করার পর তারা বিভিন্ন জায়গায় বলেছেন অভিনয় বোঝায় চেষ্টা করছেন। সেই হিসেবে আমার অভিনয়ে জন্মই হয়নি। আমি প্রতি কাজে পরিচালক থেকে শুরু করে সহশিল্পী এবং প্রডাকশনের মানুষদের কাছ থেকে নতুন নতুন জিনিস শেখার চেষ্টা করি।

তিনি বলেন, আমি খুব মেধাবী অভিনয় শিল্পী নই। আমার মেধা আমার পরিশ্রম। আমি খাটতে জানি। আহামরি অভিনয় করি না। শরীর এবং মনের সবটুকু দিয়ে অভিনয় শেখার চেষ্টা করি। প্রচুর পরিশ্রমের চেষ্টা করি। এটাই আমার মেধা। হয়তো একদিন সবার মনের মতো হতে পারবো। পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানুষরা মায়ের পেট থেকে শ্রেষ্ঠ হয়ে জন্ম নেয় নি। ধীরে ধীরে কর্ম দিয়ে শ্রেষ্ঠ হয়েছেন।

কথায় কথায় অন্য ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে তুলনা করি। ১৮ কোটি মানুষের দেশে ১৮ টি সিনেমা হল পাওয়া যাবে কিনা সন্দেহ! সেই ইন্ডাস্ট্রিতে ৯ মাস ধরে একটা চরিত্রের জন্য খেটেছি এটা চাট্টিখানি কথা না। এর মানে এই নয় যে এটা সবাই করবে। ভারত, আমেরিকার ইন্ডাস্ট্রির উপার্জনের তুলনায় আমরা নখের আগায়। এখন আমাদের ইন্ডাস্ট্রি আইসিইউতে আছে। এ কথা বলতে আপত্তি নেই, আমাদের ইন্ডাস্ট্রি থাকবে কিনা সন্দেহ! বলেন শুভ।

তিনি বলেন, ১০০ বছর আগে আমি আপনি দুনিয়াতে ছিলাম না। আগামী ১০০ বছর পরেও থাকবো না। জীবনটা অনেক ছোট। চিরকাল আমি নায়কের মতো থাকবো না। একটা সময় সবকিছু ঝরে পড়বে। এজন্য কেন এতো হিংসে গ্লানি? জীবনটাকে উপভোগ করতে চাই। কাউকে ছোট করতে চাইনা। এটা আমার নিজস্ব দর্শন। এভাবেই আমি চলি। আমি এভাবে একলাই চলতে চাই।