চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সাইবার বুলিং প্রতিরোধে সোচ্চার তারা

সাইবার বুলিং। এক বেদনাদায়ক আতঙ্ক ও অস্থিরতার নাম। বাংলাদেশে সাইবার বুলিং কতোটা প্রকট তা তারকাদের সোশাল মিডিয়া ঘুরলেই প্রমাণ পাওয়া যাবে। বিশেষত নারী তারকারা সবচেয়ে বেশী সাইবার বুলিংয়ের শিকার।

ইন্টারনেট মাধ্যমকে নিরাপদ করার জন্য সামাজিক সচেতনতায় আন্তঃব্যক্তি ‘জ্ঞান বিনিময়’ বাড়ানো পরামর্শ এসেছে এক অনলাইন প্রচারণা থেকে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

আন্তর্জাতিক দিবস ‘স্টপ সাইবার বুলিং ডে’ উপলক্ষ্যে ক্রেয়ন ম্যাগ কর্তৃক আয়োজিত ‘নো: অ্যান এন্ড টু ক্যাম্পেইন’ এ বাংলাদেশের তারকারাও অংশগ্রহণ করেছেন।

তারকাদের মাঝে আছেন- মেহের আফরোজ শাওন, রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা, পিয়া জান্নাতুল, জিনাত শানু স্বাগতা, জুনায়েদ ইভান, এলিটা করিম, সীঁথি সাহা, নাদেদজা সুলতানা আর্নিক, নেহরিন মোস্তফা, অন্তু করিম, মিশু চৌধুরী এবং বুলবুল টুম্পা।

ভিডিওর মাধ্যমে সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের উদ্দেশে পৌঁছে দিয়েছেন তাদের সতর্ক বার্তা।

২০১৬ সাল থেকে প্রতিবছর জুন মাসের তৃতীয় শুক্রবার পালিত হয় দিনটি। সেই হিসেবে এইবছর দিবসটি পালিত হয়েছে শুক্রবার (১৮ জুন)।

সাইবার বুলিং এই মুহুর্তে অনলাইন ব্যবহারকারীদের জীবনে এক ভয়াবহ সমস্যার নাম। এই সমস্যা এতোটাই প্রকট যে এর বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক ভাবে পালিত হচ্ছে স্টপ সাইবার বুলিং ডে।

বিজ্ঞাপন

ভিডিও বার্তায় এলিটা করিম জানান, তিনি সাইবার বুলিং এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর জন্য কোন নেতিবাচক খবর বা মন্তব্য শেয়ার করেন না। এগুলো শেয়ারের ফলে এই বুলিংকারীরা উৎসাহ পায়।

তিনি আরো বলেন, এই বুলিং এর শিকারদের মাঝে ৮০ শতাংশ নারী, যাদের গড় বয়স ১৩-১৪ থেকে ২২-২৩ এর মাঝামাঝি। তাছাড়া মেয়েদের পাশাপাশি অনেক ছেলেরাও সাইবার বুলিং এর শিকার।

অন্য দিকে পিয়া জান্নাতুল বলেন, আজকে আমি হয়তো সাইবার বুলিং এর প্রতিবাদ করতে পারি। কিন্তু আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে অধিকাংশ নারীরাই এটা পারেনা৷

তিনি সবার উদ্দেশে আহবান জানান, অপরাধী যেই হোক না কেন, অপরাধীকে অপরাধী বলতে শিখুন। ভিক্টিমকে অপরাধী বানাবেন না৷

এই ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে রেডিও টুডেতে আয়োজন করা হয়েছে একটি বিশেষ টক শোর। যেখানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওন, রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা এবং সাংবাদিক জ ই মামুন।

ক্রেয়নম্যাগের প্রতিষ্ঠাতা তানজিরাল দিলশাদ দ্বিতান বলেন, আমরা এমন একটি ক্যাম্পেইন আয়োজন করার চেষ্টা করেছি যার মাধ্যমে সমাজের সকল স্তরের মানুষকে সাইবার বুলিং এর ভয়াবহতা সম্পর্কে জানানোর প্রয়াস পাবো। বাংলাদেশে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মেয়ে, এমনকি ছেলেরাও সাইবার অপরাধের শিকার হচ্ছে ৷ ক্রেয়নম্যাগ চায় সকল প্রকার সাইবার অপরাধের অবসান ঘটুক এবং বাংলাদেশ এই সমস্যা থেকে মুক্ত হোক।

২০২০ সালে শুরু হওয়া ক্রেয়নম্যাগ একটি সামাজিক সংগঠন। সমাজের চলমান রীতি রেওয়াজ, অসমতা এবং এক পাক্ষিক দৃষ্টিভঙ্গির বিরুদ্ধে কাজ করে প্রতিষ্ঠানটি। তাদের এই আয়োজনে সহযোগী হিসেবে যুক্ত আছে ব্যাক পেইজ পিআর৷

বিজ্ঞাপন