চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালেই চলবে

সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল হত্যা মামলাটি রাজশাহীর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালেই চলবে

এর আগে এ হত্যা মামলাটি রাজশাহীর দ্রুত বিচার ট্রাইবুন্যালে স্থানান্তরের প্রজ্ঞাপন চ্যালেঞ্জ করে রিট করেন আসামিরা। এরপর এই মামলার কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেন হাইকোর্ট। তবে হাইকোর্টের এই আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আবেদন করলে আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতির আদালত হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করে বিষয়টি প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চে শুনানির জন্য নির্ধারণ করেন।

সে অনুযায়ী আজ বিষয়টি আপিল বেঞ্চে এলে আসামি পক্ষ থেকে আদালতকে বলা হয়, ‘যে রিটের ফলে শিমুল হত্যা মামলার কার্যক্রম স্থগিত করেছিল হাইকোর্ট, সেই রিট তারা চালাবেন না।’ এমন পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন অকার্যকর বলে তা খারিজ করেন।

এই আদেশের ফলে শিমুল হত্যা মামলাটি রাজশাহী দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালেই যথারীতি চলবে বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ।

আজ আদালতে আসামি পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এ এম আমিন উদ্দিন আর বাদি পক্ষে ছিলেন রুহুল কুদ্দুস কাজল।

বিজ্ঞাপন

এই মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়: ২০১৭ সালের ২ ফেব্রুয়ারি শাহজাদপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি বিজয় মাহমুদকে মেয়র মিরুর ভাই পিন্টু অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে হাত-পা ভেঙে দেন বলে অভিযোগ ওঠে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মেয়রের বাড়ি ঘেরাও করতে গেলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ওই সংঘর্ষের খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে গুলিতে আহত হয়ে পরে মারা যান সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল।

এরপর শিমুলের স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগম মেয়রসহ ১৮ এবং অজ্ঞাতনামা আরও ২২ জনসহ মোট ৪০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এরপর গত ২৮ ডিসেম্বর এই হত্যা মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য সিরাজগঞ্জ আদালত থেকে রাজশাহী দ্রুত বিচার ট্রাইবুন্যালে স্থানান্তর করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

তবে এই প্রজ্ঞাপন চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন হাবিবুল হক মিন্টুসহ আসামিরা। সে রিটের শুনানি নিয়ে গত ২৯ আগস্ট বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের হাইকোর্ট বেঞ্চ শিমুল হত্যা মামলার বিচারের কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেন। এবং এই হত্যা মামলাটি রাজশাহী দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর কেন অবৈধ হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়।

এরপর হাইকোর্টের এই আদেশের বিরুদ্ধে চেম্বার আদালতে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। সে আবেদনের শুনানি নিয়ে চেম্বার আদালত হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করে বিষয়টি ১৪ অক্টোবর প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চে শুনানির জন্য নির্ধারণ করেন।

শেয়ার করুন: