চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সরকারের বিরুদ্ধে কথায় আপত্তি নেই, অপপ্রচার যেন না হয়: প্রধানমন্ত্রী

নিজেদের ব্যবসা-বাণিজ্য চালানোর পাশাপাশি দেশের উন্নয়নের গল্পগুলো জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে সম্প্রচার মাধ্যমগুলোর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, সরকারের বিরুদ্ধে কথা বললে আপত্তি নেই, কিন্তু তাতে মিথ্যা অপপ্রচার যেন না হয় সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে।

রাজধানীর প্যান-প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে আয়োজিত বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর মাধ্যমে বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলোর বাণিজ্যিক সম্প্রচার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশের মানুষদের মন-মানসিকতা হলো, সরকারে যারাই থাকবে, তাদের বিরুদ্ধে একটু কথা না বললে নাকি আকর্ষণ থাকে না। আপনারা বিরুদ্ধে বলেন, বিরুদ্ধে করেন, আমার কোনো আপত্তি নাই। কিন্তু মিথ্যা অপপ্রচার যেন না হয় এ ব্যাপারে দয়া করে সতর্ক থাকবেন। কেননা মিথ্যা অপপ্রচার দেশের মানুষের ভেতর সন্দেহ ও সংঘাত সৃষ্টি করে। সেটা যেন না হয়।’

তিনি বলেন, ‘কিছু না হোক, গত দশ বছরে কিছু কাজ তো করেছি, এটা তো অস্বীকার করতে পারবেন না। সেটাও একটু প্রচার করবেন, সেটা আমরা চাই। কেননা আপনি তখনই কাজ করে সফলতা পাবেন যখন মানুষের ভেতর তা নিয়ে একটা আত্মবিশ্বাস গড়ে উঠবে। তাই এমন কিছু করবেন না যে আমাদের দেশের মানুষ এত কিছু পাবার পরেও আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলে, দিশেহারা হয়ে যায়। কাজেই যতটুকু ভালো কাজ করেছি ততটুকুর প্রচার আমি দাবি করছি।’

সম্প্রচার মাধ্যম কর্তৃপক্ষ এবং গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের উদ্দেশ্যে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আজকে আমি সত্যিই খুব আনন্দিত যে, আমাদের সবগুলো টিভি চ্যানেল কর্তৃপক্ষ বাণিজ্যিকভাবে সম্প্রচার শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং আজকে আমরা একই সাথে সেই সম্প্রচার উদ্বোধন করছি। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের টেলিভিশন সম্প্রচারের ক্ষেত্রে একটি নতুন মাত্রা যোগ হলো। একটি নতুন অগ্রযাত্রা শুরু হলো।’

বিদেশি স্যাটেলাইট ভাড়া করে এতদিন সম্প্রচার কাজ চালানোর বদলে এখন থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সম্প্রচার করার ফলে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর অনেক অর্থ সাশ্রয় হবে বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

বিজ্ঞাপন

রসিকতা করে তিনি বলেন, ‘এখন সেই টাকা কী করবেন, সেটা নিয়েও আমার প্রশ্ন আছে। কিছু টাকা দান-টান করে দিয়েন গরীব মানুষের জন্য, কারণ অনেক টাকাই আপনাদের বেঁচে যাচ্ছে। এছাড়া টাকা অর্জন করা, পাঠানোসহ নানা ঝামেলাও ছিল। কবে আবার কে কোন মামলায় পড়ে যান সেটাও চিন্তা ছিল! সেই দুশ্চিন্তাটাও কিন্তু দূর হয়ে গেল।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে সম্প্রচারের মাধ্যমে ইলেকট্রনিক সম্প্রচারের পথে অনেক বাধাই দূর হয়ে যাবে। এতদিন পরনির্ভরশীল হয়ে থাকা লাগত, এখন আর তা লাগবে না। অন্যের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকা লাগবে না।

‘আমরা এখন নিজেদের পায়ে দাঁড়াবার একটা সুযোগ পেলাম, আত্মমর্যাদা নিয়ে চলার একটা সুযোগ পেলাম,’ চ্যানেল মালিকদের বলেন শেখ হাসিনা।

স্যাটেলাইট ব্যবস্থা যেমন প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে নতুন অনেক কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে, তেমনি টেলিযোগাযোগ সম্প্রচার সেবারও মান বৃদ্ধি করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশে এতগুলো টেলিভিশন চ্যানেল থাকবে, সেগুলো দেখার সক্ষমতাও তো দেশের মানুষের থাকতে হবে। সেজন্য কাজ করে যাচ্ছে সরকার।

ইতোমধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ এর কাজ চলছে বলেও জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

এছাড়াও জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস, মাদক ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। অভিযুক্ত যে-ই হোক, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

Bellow Post-Green View