চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সমবেতভাবে ‘স্বস্তির নগরী’ গড়ার প্রতিশ্রুতি

বিজয়ী হলে সমস্যাবহুল ঢাকাকে দলীয় চক্রে না বেঁধে উত্তর আর দক্ষিণের মেয়র
ভবনকে জনগণের সেবা কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে চান মেয়র প্রার্থীরা। আর তরুণ্যের বিজয় হলে এ শহরকে প্রজন্ম শহর হিসেবে উপহার দেয়ার অঙ্গীকার করেছেন তরুণ প্রার্থীরা।

ঢাকা সিটি নির্বাচনে উত্তর আর দক্ষিণ মিলে মোট মেয়র প্রার্থীর সংখ্যা ৩৯ জন। ‘আমি যদি মেয়র হই’ শিরোণামের আলোচনায় দৈনিক প্রথমআলো দুই প্রান্তের ৭ জন মেয়র প্রার্থীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল। দক্ষিণের বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মির্জা আব্বাস ছাড়া বাকি ৬ জন মেয়র প্রার্থী আলোচনায় যোগ দেন। সমস্যাবহুল ঢাকা নিয়ে নানা স্বপ্নের কথা শোনালেন তারা।

ঢাকা দক্ষিণ সিটির আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী সাইদ খোকন বলেন, তিনি মেয়র পদে নির্বাচিত হবার পর তার প্রথম কাজই হবে এই শহরে যত বিবেকবান মানুষ আছে তাদের সমন্বয়ে একটি ‘ঢাকা ডায়লগ’ গঠন করা।

Advertisement

ঢাকা উত্তর সিটির বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বলেন, সমস্যা যা ছিলো তা ইতোমধ্যেই চিহ্নিত হয়ে গেছে। তিনি প্রস্তুত এ সকল সমস্যা সমাধান করতে।

আলোচনা অনুষ্ঠানে সব প্রার্থীই বিজয়ী হলে সরকারের সঙ্গে সমন্বয় করে জনগণের জন্য শহরের সেবা বাড়ানোর কথা বলেছেন। শিশু-নারীবান্ধব ও নিরাপদ মহানগর গড়ার আশ্বাস সবারই।

বিজয়ের প্রথম দিন মেয়র প্রার্থীরা কে কী করবেন, সেই প্রশ্নের জবাবে সবাই বলছেন, অনেকেই এখন যে ঢাকাকে বাসযোগ্য বলছেন না, সেই ঢাকাকে স্বস্তির নগরী করে তোলাই তাদের প্রথম কাজ।