চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ভারতে সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানে চার জনের মৃত্যু

ভারতের শ্রীনগরে নিরাপত্তা বাহিনীর সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানে সন্ত্রাসবিরোধী ক্রুসেডারের ছেলেসহ চার জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে একজনকে সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

ক্রুসেডার আব্দুল লতিফ মাগ্রে এনডিটিভিকে বলেন, আমি ২০০৫ সালে ভারতের রামবান জেলায় একজনকে পাথর মেরে হত্যা করার পর আবার গুলি করি। আমার ছেলে আমির মাগ্রে নির্দোষ ছিল এবং শ্রীনগরে দোকানের শ্রমিক হিসেবে কাজ করেছে। আমি নিজেই সন্তাসীদের পাথর মেরে হত্যা করেছি। এই আত্মত্যাগের ফলই কি আমার ছেলেকে সন্তাসী চিহ্নিত করে হত্যা করা হয়েছে? এমনকি পুলিশ আমার ছেলের লাশটা ফেরত দিতে চাচ্ছে না।

তবে পুলিশ দাবি করেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পুলিশের অভিযানে সন্তাসীদের সাথে ২৪ বছরের আমির মাগ্রে নিহত হয়েছে। এবং আমির নিজেও সন্তাসী কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত ছিল।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় হায়দরপোরায় একটি বাণিজ্যিক ভবনে জঙ্গিদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় বাহিনীর। বুধবার সকালে জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের আইজি বিজয় কুমার জানান, সংঘর্ষে চার জন নিহত হয়েছেন। তারমধ্যে রয়েছে পাকিস্তানি জঙ্গি হায়দর ও তার এক স্থানীয় সঙ্গী আমির মাগ্রে। মাগ্রে বানিহালের বাসিন্দা। তার পরিবারকে খবর দেওয়া হয়েছে।

বিজয় কুমার জানান, নিহত বাকি দু’জনের নাম আলতাফ বাট ও মুদাসির গুল। তাদের মধ্যে আলতাফ ওই বাণিজ্যিক ভবনের মালিক। তারও ওই ভবনে একটি অফিস ছিল। মুদাসির গুল দন্তচিকিৎসক ও ব্যবসায়ী। হায়দরপোরার ওই ভবনে তার একটি কম্পিউটার সেন্টার ছিল।

বিজয় কুমারের দাবি, মুদাসির গুল জঙ্গিদের সহযোগী। তিনিই হায়দর ও তার সঙ্গীকে আশ্রয় দিতে আলতাফের বাণিজ্যিক ভবনে একটি ঘর ভাড়া নিয়েছিলেন। দীর্ঘদিন ধরেই তিনি জঙ্গিদের আশ্রয় দিচ্ছিলেন। উত্তর ও দক্ষিণ কাশ্মীর থেকে জঙ্গিদের যাতায়াতের ব্যবস্থাও করতেন।

বিজ্ঞাপন