চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সততার শক্তিতেই আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র পরাস্ত: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন বাংলাদেশকে নিয়ে দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র অব্যাহত রয়েছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এই দেশ হবে শান্তিপূর্ণ, এখানে জঙ্গি-সন্ত্রাসের কোনো স্থান হবে না।

নানান কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপনের অংশ হিসেবে আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। সেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বঙ্গবন্ধুকে ঘিরে আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতাদের স্মৃতিবিজরিত নানা ঘটনা উঠে আসে আলোচনায়। প্রধানমন্ত্রীও তার বাবার জীবন সংগ্রামের ইতিহাস তুলে ধরে বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যে দিয়ে এদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র করার চেষ্টা হয়েছিলো।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলা ভাই, জঙ্গিরা প্রকাশ্য দিবালোকে অস্ত্র উচিয়ে মিছিল করে। সরকার পাহাড়া দেয়! বাংলাদেশকে একটি জঙ্গিরাষ্ট্রে পরিণত করেছিল খালেদা জিয়া। সেসময়কার লুটপাট, দুর্নীতির কথাও বলেন তিনি।

“এরকম প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রেনেড হামলা হয়। এই ধরণের জঘন্য ঘটনা ঘটিয়ে আবার তাদেরও কিন্তু বিচার করার কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।”

বিজ্ঞাপন

জঙ্গিবাদ সন্ত্রাস দমনে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা চেয়েছি বাংলাদেশ একটি শান্তিপূর্ণ দেশ হবে। সেই জন্য এই দেশে কোন জঙ্গিবাদ সন্ত্রাসের স্থান নাই।

প্রধানমন্ত্রী জানান, পর্যায়ক্রমে ২ লাখ ৮১ হাজার মানুষকে বসতবাড়ি তৈরি করে দেয়া হবে। কারো কাছে হাত পেতে নয় এদেশ চলবে মাথা উঁচু করে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা কথা সবসময় মনে রাখবেন। সততাই শক্তি। সততা থাকলেই জোর গলায় কথা বলা যায়। যেকোন পরিস্থিতি মোকাবেলা করা যায়। যে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের মধ্যে আমরা পড়তে গিয়েছিলাম, এই সততা ছিলো বলেই আমরা তা মোকাবেলা করতে পেরেছি। আজকে নিজস্ব অর্থায়নে আমরা পদ্মাসেতুর মতো বিশাল প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পারছি শুধু এই একটা কারণে।

“বাঙালি জাতি হিসেবে এটা আমাদের গর্ব। আমাদের চ্যালেঞ্জ ছিলো। তাই বলে ষড়যন্ত্র যে থেমে যায় বা থেমে গেছে তা কিন্তু না।”

এ দেশের অগ্রযাত্রা কেউ ব্যাহত করতে পারবে না বলেও আশাবাদ ব্যাক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিজ্ঞাপন