চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শেরপুরের বিধবাদের চোখে আনন্দাশ্রু

অনলাইন ডেস্ক: মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আপিল বিভাগে কামারুজ্জামানের মৃত্যুদণ্ডের রিভিউ আবেদন খারিজ হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন শেরপুরের মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা। অবিলম্বে ফাঁসির রায় কার্যকরের দাবি জানিয়েছেন তারা।

আপিল বিভাগে রিভিউ খারিজের আদেশ ঘোষণার পর পরই শেরপুরে বের করা হয় আনন্দ মিছিল। একে অপরকে মিষ্টি খাইয়ে আনন্দ উদযাপন করা হয়।

আপিল বিভাগে কামারুজ্জামানের রিভিও আপিল খারিজ হওয়ায় আবারো কাঁদলেন সোহাগপুরের বিধবারা। একাত্তরে স্বজন হারানোর বেদনায় তারা কেঁদেছিলেন কষ্ট নিয়ে। তবে এবার তাদের চোখে আনন্দাশ্রু।

সোহাগপুর বিধবপল্লীর শহীদ পরিবারের সন্তান জালাল উদ্দিন বলেন, এই রায়ের পর আমি মনে করবো আমার বাবার মৃত্যুর সু্ষ্ঠু বিচারটা হয়েছে। আমি খুশি।

শহীদ পরিবারের আরেক সদস্য জরিতন বেওয়া  বলেন, আমরা খুব খুশি হয়েছি। সেদিন দেশ স্বাধীন হওয়ার পর খুশি হয়েছিলাম আজও খুশি হয়েছি।

 কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় বহাল থাকায় শহীদ পরিবারের সদস্যরা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তাঁরা বলেছেন, এ রায়ের মধ্য দিয়ে শেরপুর কলঙ্কমুক্ত হলো।

ট্রাইব্যুনালের সাক্ষী মহন মুন্সী বলেন, আল্লাহর কাছে এই দোয়া করি, তিনি যেন আমারে কামারুজ্জামানের ফাঁসিটা দেখে যেতে পারি। আমাকে মুক্তিযুদ্ধে যেতে না দিয়ে সে আমার জীবনটা ধ্বংস করে দিয়েছে।

ট্রাইব্যুনালের আরেক সাক্ষী মজিবর রহমান পানু বলেন, তারা আমার বাবাকে মেরেছে। আরো অনেককে মেরেছে। তাই এই রায়ে আমি আনন্দিত।

কামারুজ্জামানের ফাঁসির আদেশ বহাল থাকায় প্রবীণদের মতো খুশি হয়েছে ছাত্র খোকন মিয়াও।

শুধু শহীদ পরিবার কিংবা ৭১- এ বিধবারাই নয়, কামারুজ্জামানের ফাঁসির আদেশ বহাল থাকায় খুশি শেরপুরবাসী। তারা এখন অপেক্ষায় রায় কার্যকরের।