চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শেকৃবি’র উপাচার্য নিয়োগের সুপারিশে প্রথম স্থানে দলবদল করা শিক্ষক

রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি হচ্ছেন বিএনপির সুবিধাভোগী শিক্ষক ড. পরিমল কান্তি বিশ্বাস। উপাচার্য পদে নিয়োগের জন্য সুপারিশের তালিকায় প্রথম স্থানেই রয়েছে তার নাম। বর্তমানে তিনি প্রতিষ্ঠানটির পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিন।

জানা যায়, ২০০১ সালে বিএনপি জামাত ক্ষমতায় আসলে ড. পরিমল জিয়ার আদর্শের সাদা দলে যোগ দেন। পুরস্কার হিসাবে তিনি বেগম ফজিলাতুননেছা মুজিব হলের প্রোভোস্টের দায়িত্ব পান। তখন ড. রজ্জব আলী (যিনি পরবর্তীতে সাদা দলের সভাপতি হন) সহকারী প্রোভোস্ট ছিলেন। এছাড়াও ১৯৯১ সাল থেকে শুরু করে ২০০১-২০০৮ পর্যন্ত তিনি বিএনপি জামাত সরকারকে সমর্থন করে বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক পদ আদায় করেন।

বিজ্ঞাপন

সেসময় ড. পরিমল কান্তি বিশ্বাস বিভিন্ন দিবসে জিয়ার মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করতেন। ড. বিশ্বাস চাকরী জীবনে দীর্ঘ ২৭ বছর (১৯৮৫-২০১২) মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর চেতনায় বিশ্বাসী নীল দলের বাইরে ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি সুবিধা পাবার আশায় আবার তিনি দল বদল করেন। দীর্ঘ ২৭ বছর চাকুরীর পর সর্বপ্রথম ২০১২ সালে মুক্তিযুদ্ধপন্থী শিক্ষক সংগঠনে যোগদান করেন।

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট শিক্ষকরা বলছেন ড. পরিমল কখনও জাতীয় দিবসসমূহে ধানমন্ডির ৩২ বা জাতীয় স্মৃতিসৌধে যান না। তিনি কখনও শিক্ষক সমিতি বা নীলদলের নেতৃত্বে ছিলেন না। তিনি চাকরী জীবনের দীর্ঘ ত্রিশ বছর মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর চেতনায় বিশ্বাসী শিক্ষকদের সংগঠন নীল দলের বাইরে ছিলেন। সম্প্রতি প্রশাসনিক পদের আশায় ২০১৫ সালে নীল দলে যোগদান করেন।

ড. পরিমল এমএস প্রোগ্রামের সেশন জট দূর করতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হন। এ কারণে এমএস পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে চরম অসন্তোষ রয়েছে।

সম্প্রতি তিনি ২০০ বাসা বরাদ্দ কমিটির সভাপতি থাকার সময়ে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উত্থাপিত হয়। তখন তিনি সেই বিষয়টি সমাধান না করে পদত্যাগ করলে বিতর্কের সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে ড. পরিমল সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার হচ্ছে।