চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শিশুদের সঙ্গে কচির কুড়ি দিন, সেই অভিজ্ঞতা বইয়ে

জনপ্রিয় অভিনেতা, নাট্যকার ও নাট্যনির্মাতা কচি খন্দকার নতুন বই লিখেছেন। তার বইয়ের নাম ‘এমভি শিশুস্বর্গ’। শোভা প্রকাশনী থেকে আগামী অমর একুশে বইমেলা বইটি তিনি প্রকাশ করবেন। এই বইয়ের উপজীব্য করোনাকাল ও শিশুকিশোরদের নিয়ে।

গেল বছর আবু রায়হান জুয়েলের ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’-এ অভিনয় করেন কচি খন্দকার। সেখানে একঝাঁক শিশুশিল্পীর সঙ্গে শুটিংয়ে অংশ নিয়েছিলেন তিনি। ওই ছবির বেশীরভাগ শুটিং হয়েছিল লঞ্চে। দেশে করোনা সংক্রমণ শুরুর সঙ্গে সঙ্গে ছবিটির শুটিং বন্ধ হয়ে যায়। সুন্দরবন থেকে ইউনিট ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেয়।

করোনার কারণে যান চলাচল বন্ধ করে দেয় প্রশাসন। কচি খন্দকারসহ শুটিং ইউনিট ৪ এপ্রিল পর্যন্ত খুলনার নদীবন্দরে লঞ্চেই থাকে। তখনই ‘এমভি শিশুস্বর্গ’ বইটি লেখার পরিকল্পনা আসে কচি খন্দকারের মাথায়। লঞ্চের ‘বন্দি’ জীবনের নানা অভিজ্ঞতা নিয়ে বই লিখেছেন কচি খন্দকার।

বিজ্ঞাপন

কচি খন্দকার চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, করোনাকালীন মানবিকতা, মূল্যবোধ, অবক্ষয় সবকিছু উঠে এসেছে বইটিতে।

তিনি বলেন, ‘এমভি’ হচ্ছে লঞ্চের নাম এবং ‘শিশুস্বর্গ’ নামটির ভাবনা এসেছে শিল্পী এসএম সুলতানের মতাদর্শ থেকে। তার স্বপ্ন ছিল শিশুদের কোনো সংকট থাকবে না। লঞ্চে বন্দি থাকা ও শিশুদের সঙ্গে থাকা এই দুই মিলিয়েই বইটির নাম এমভি শিশুস্বর্গ।

কচি খন্দকার বলেন, করোনা আমাদের অনেক বড় শিক্ষা দিয়েছে। করোনার শুরুর দিকে আমরা টানা ২০ দিন লঞ্চে ছিলাম।  চারপাশ থেকে অনেকটা বিচ্ছিন্ন ছিলাম। সারা দুনিয়ায় কী ঘটছে তাও জানতাম না। মনের মধ্যে সংশয় ছিল। ভবিষ্যতে কী ঘটতে যাচ্ছে তাও বুঝতে পারতাম না। আমাদের সঙ্গে অনেকগুলো শিশু ছিল। তাদের হাসি-খুশি রাখতাম। তখন মনে হতো শিশুস্বর্গের মাঝে আছি। ফেরার পর মনে হলো এই অভিজ্ঞতা নিয়ে একটা বই লিখে ফেলা যায়। সেই সিদ্ধান্তের ফলই এই বই।

বিজ্ঞাপন