চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শিল্পাঞ্চল হিসেবে গড়ে উঠছে দক্ষিণবঙ্গ

পদ্মা সেতু বদলে দিয়েছে গোটা দক্ষিণাঞ্চলের চাল চিত্র। সেতু নির্মাণ শেষ না হলেও এরই মধ্যে এর সুফল পড়তে শুরু করেছে দক্ষিণের ২১টি জেলায়। গড়ে উঠছে নতুন নতুন শিল্পকারখানা, আবাসন শিল্প, হাসপাতালসহ নানান অবকাঠামো। কর্মসংস্থান হচ্ছে কয়েক লাখ মানুষের।

ঢাকার সঙ্গে চট্টগ্রাম বন্দরের সড়কপথে দূরত্ব ২৫০ কিলোমিটারের বেশি। পদ্মা সেতু হয়ে গেলে ঢাকার সঙ্গে মংলা বন্দরের দূরত্ব হবে মাত্র ১৭০ কিলোমিটার। মংলা বন্দরে পন্য পরিবহনে জ্বালানি খরচ ও সময় দুটোরই সাশ্রয় হবে। মংলা হবে কর্মচঞ্চল বন্দর। পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে দক্ষিণাঞ্চল গড়ে উঠবে শিল্পাঞ্চল। এসব সম্ভাবনা এখন বাস্তবে রূপ নেয়ার পথে।

এলাকাবাসীরা বলছেন, একটা সময়ে এই এলাকার জমির দাম শতাংশ ছিল দশ হাজার টাকা আর পদ্মা সেতু নির্মাণ হচ্ছে এটা জেনেই জমির শতাংশ প্রায় চল্লিশ থেকে পঞ্চাশ হাজার টাকা।

পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হওয়ার পর পদ্মার আশপাশের জেলাগুলোর প্রধান সড়কের পাশে রীতিমত ধুম পড়েছে জমি কেনার। একসময় যেসব জমিতে ফসল আবাদ হতো, সেসব জমিতে গড়ে তোলা হচ্ছে শিল্প-কারখানা।

Advertisement

এক ব্যবসায়ী জানালেন, জুট মিল করার কথা। পাঁচ থেকে ছয় হাজার লোক কাজ করবে, প্রশিক্ষক থাকবে, এখানকার লোকজনকে প্রশিক্ষণ দিবে,পরে তারাই কাজ করবে।

স্থানীয়রা বলছেন, পদ্মা সেতু হলে এখানকার আশপাশের লোকজনের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে।আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থার জন্য পদ্মা সেতু অন্যতম দিক। আর পদ্মা সেতু হলেই এখানে শিল্প কারখানা গড়ে উঠবে। আর শিল্প কারখানা গড়ে উঠলেই শ্রমিকরা থাকবে, বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দোকানপাঠ গড়ে উঠবে।এর সঙ্গে গ্রামের উন্নয়ন হবে।

তারা আরো বলেন, এখনি অর্থনৈতিক দিক দিয়ে এলাকার মানুষ মুক্তি পেয়েছে। আজ থেকে পাঁচ বছর পর অসম্ভব অর্থনৈতিক অগ্রগতি হবে।

স্থানীয়রা বলছেন, পদ্মা সেতু ও গ্যাস সংযোগ নিশ্চিত হলে এ এলাকায় শিল্পায়নের যেমন বিকাশ ঘটবে, তেমনি বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানে গতি আসবে।