চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি, ছুটি আবারও বাড়ছে: শিক্ষামন্ত্রী

করোনাভাইরাস এর কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি আবারও বাড়ছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

বুধবার দুপুরে অনলাইনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে একথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী।

বিজ্ঞাপন

মতবিনিময়কালে সাংবাদিকেরা ছুটি বাড়ছে কিনা- জানতে চাইলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি তো বাড়াতে হবে, তারিখটা আপনাদের জানিয়ে দেবো।

বিজ্ঞাপন

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ছুটি ধাপে ধাপে দেওয়া ছাড়া একবছর ছয় মাসের জন্য বন্ধ করে দেওয়া সম্ভব নয়। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আগে খুলে দেওয়ার কথা বলেছেন, আমরা সববিষয় বিবেচনায় রেখেই সিদ্ধান্তগুলো নেবো।

এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার সব প্রস্তুতি আমাদের রয়েছে। কারণ, পরীক্ষার আগ মুহূর্তে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়েছে। আমাদের প্রশ্নও তৈরি আছে। কিন্তু ১৪ লাখ পরীক্ষার্থীর সঙ্গে একজন করে অভিভাবক কেন্দ্রে গেলেও শিক্ষকসহ ২৫ থেকে ৩০ লাখ লোকের সম্পৃক্ততা থাকে। যারা অধিকাংশই গণপরিবহন ব্যবহার করবেন। সেজন্য আমরা এখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি।

বিজ্ঞাপন

শিক্ষামন্ত্রী জানান, এইচএসসির বিষয়ে কী কী পদক্ষেপ নেওয়া যায় সবকিছু আমরা ঠিক করেছি। আগামী সোম বা মঙ্গলবারের মধ্যে পরিপূর্ণ পরিকল্পনা তারিখসহ ঘোষণা করতে পারবো। কতটুকু পরীক্ষা নেবো, কী পদ্ধতিতে নেবো সেটি সেদিন জানাতে পারবো। তবে পরীক্ষাদের আমরা অন্তত চার সপ্তাহ সময় দেবো। চেষ্টা করবো দ্রুততম সময়ের মধ্যে কত নাম্বারের মধ্যে পরীক্ষা নিয়ে এটি সম্পন্ন করতে পারি। আর জেএসসি পরীক্ষার ফলাফলও আমরা মূল্যায়নে নিয়ে আসতে পারি।

তিনি বলেন, বিভিন্ন দেশে সংক্রমণ কম দেখে খুলে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ফের বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আমরা সর্বক্ষণ সারাবিশ্বের দিকে নজর রাখছি। শিক্ষাজীবন যাতে ব্যাহত না হয় সে জন্য যা যা করণীয় তা করার চেষ্টা করছি।

‘আমরা শিক্ষার্থীদের জীবন সুরক্ষিত রেখে এবং স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়িয়ে যেতে পারি, সে নিয়ে আমরা ভাবছি। সবাই একসঙ্গে কাজ করতে হবে। সবারই সহযোগিতা প্রয়োজন। ’

চলতি বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর ২৬ মার্চ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত ৬৬ দিনের সাধারণ ছুটি শেষে ৩১ মে সীমিত পরিসরে অফিস ও ১ জুন থেকে গণপরিবহন খুলে দেওয়া হয়।

আর ১৭ মার্চ হতে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছে সরকার। মহামারির কারণে কয়েক দফা বাড়িয়ে গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ানো হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান সংযুক্ত ছিলেন।