চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শাহবাগ থেকে সরে গেলেন চাকরিপ্রার্থীরা

কোটা সংস্কারের আন্দোলন করতে গিয়ে বুধবার পুলিশের হাতে আটক আন্দোলনকারীকে ছেড়ে দেওয়ার পর রাজধানীর শাহবাগ থেকে সরে গেছেন চাকরিপ্রার্থীরা।

দুপুরে আটক তিনজনকে ছাড়িয়ে আনতে গিয়ে আটক হন অন্তত ৫০ চাকরিপ্রার্থী। আটকদের ছেড়ে দেওয়ার দাবিতে আনতে ব্যর্থ হয়ে আবারও শাহবাগে অবস্থান নেন তারা।

ছাড়া পাওয়ার পর আটককৃতদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন আন্দোলনকারীরা। পরে একটি আনন্দ মিছিল নিয়ে তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) অবস্থিত রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন।

মুক্তি পাওয়া আন্দোলনকারী রফিকুল চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, “আজকে আমরা বিভীষিকার মধ্যে ছিলাম। আমরা শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করছিলাম। কিন্তু পুলিশ আমাদেরকে আটক করে রাখে। সেখানে (থানায়) আমাদের তারা এক ফোঁটা পানিও খেতে দেয়নি।”

Advertisement

বুধবার দুপুরে সরকারি চাকরিতে বিদ্যমান কোটা সংস্কারের দাবিতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে পুলিশ হামলা চালায়। রাজধানীর হাইকোর্ট মোড়ে এ সময় পুলিশ ও আন্দোলনকারীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এর আগে সকালে রাজধানীর শাহবাগ এলাকায় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে জড়ো হন আন্দোলনকারীরা। বেলা ১১টায় আন্দোলনকারীরা পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ঘেরাও করতে সেখান থেকে মিছিল নিয়ে বের হন।

মিছিলটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা, দোয়েল চত্বর হয়ে হাইকোর্ট চত্বরে গেলে আন্দোলনকারীদের আটকে দেয় পুলিশ। এ সময় সেখানেই রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে এগিয়ে যেতে থাকেন আন্দোলনকারীরা। পরে পুলিশ তাদের ওপর কাঁদানে গ্যাস ছুড়লে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন আন্দোলনকারীরা।

এর আগে পাঁচ দফা দাবিতে শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন আন্দোলনকারীরা। ১৩ মার্চের মধ্যে দাবি আদায় না হলে ১৪ মার্চ সকালে সারা দেশে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে ও ঢাকায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করার ঘোষণা দিয়েছিলেন আন্দোলনকারীরা। তারই পরিপ্রেক্ষিতে আজ সকালে এই কর্মসূচি শুরু করেন তারা।

আগামী ১৮ মার্চ সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা মোমবাতি প্রজ্বালন করবেন বলে জানান আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।