চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শন কনারি: শূন্য থেকে জেমস বন্ড হয়ে ওঠা

এডিনবার্গের এক জনবহুল বাড়ির ছোট ফ্ল্যাটে বেড়ে উঠেছিলেন শন কনারি। মাত্র ১৩ বছর বয়সে স্কুল ছেড়েছেন। জীবিকার তাগিদে কাজ করেছেন নির্মাণ শ্রমিক, লরি চালক এবং কফিন পলিশার হিসেবে। এই মানুষটিই হয়ে উঠেছেন হলিউডের সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতাদের একজন।

লাইলাকস ইন দ্য স্প্রিং (১৯৫৪) ছবি দিয়ে অভিনয়ে যাত্রা শুরু করেছিলেন কনারি। ১৯৬২ থেকে ১৯৮৩ সাল বন্ড সিরিজের ৭টি ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। এই সাতটি ছবিই বাণিজ্যিক ভাবে সফল। বন্ড সিরিজের উন্মাদনা আর ব্র্যান্ড ভ্যালু শনেরই তৈরি, এমনটাই মনে করেন অনেকে। জেমস বন্ড চরিত্রটির সাথে তিনি যেন মিশে গিয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন

জেমস বন্ড চরিত্রের জন্য যখন কনারিকে প্রথম নির্বাচন করা হলো তখন তার বয়স ছিল ৩০। সমসাময়িক অভিনেতাদের থেকে একটু আলাদা ছিলেন কনারি। কেনিথ মোর বা ডির্ক বোগার্ডের মতো উচ্চারণ ছিল না তার। পোশাক ছিল সাদামাটা। তবে সুঠাম শরীর, ব্যক্তিত্ব আর অভিনয় দক্ষতার কারণে সহজেই মানিয়ে গেছেন জেমস বন্ড চরিত্রের সাথে। ভরাট কণ্ঠে ছুড়ে দেয়া প্রতিটি সংলাপ সিনেমায় এনে দিয়েছিল বাড়তি আবেদন।

শুধু জেমস বন্ড হয়, যে কোনো চরিত্রেই ‘পারফেক্ট’ ছিলেন শন কনারি। দ্য আনটাচেবলস চলচ্চিত্রে একজন আইরিশ পুলিশের ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য ১৯৮৮ সালে শ্রেষ্ঠ অভিনেতার পুরস্কারে ভূষিত হয়েছিলেন তিনি। দ্য আনটাচেবলস ছাড়াও দ্য হান্ট ফর রেড অক্টোবর, ইন্ডিয়ানা জোন্স এন্ড দ্য লাস্ট ক্রুসেড এবং দ্য রক-এ অনবদ্য অভিনয়ের জন্য তিনি প্রশংসিত হয়েছেন।

ক্যারিয়ারের শেষের দিকে শন কনারি ক্যামেরার চাইতে গলফ কোর্সে বেশি সময় কাটাতেন। তবে শেষের দিকে হাতে গোনা যেই কয়টি কাজে তাকে দেখা গেছে, সবগুলোতেই নিজের দক্ষতা প্রমাণ করেছেন তিনি।

৩১ অক্টোবর শনিবার মারা গেছেন অভিনেতা শন কনারি। ঘুমের মধ্যেই মৃত্যু হয়েছে তার, জানিয়েছেন তার ছেলে জ্যাসন কনারি। স্কটিশ এই অভিনেতার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর। ইন্ডিপেন্ডেন্ট