চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

লুকাকুকে মাঠের বাইরে ‘কালোযাদু’ করতে বললেন ইব্রা

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে দুজনে ছিলেন সতীর্থ। পেশাদারিত্বের কারণে তারা এখন চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই ক্লাবের প্রধান দুই হাতিয়ার। মাঠে তাই পুরনো বন্ধুত্বও ভুলে গেলেন রোমেলু লুকাকু ও জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ। দুজনে একপ্রকার জড়িয়ে পড়েছিলেন হাতাহাতিতে!

আধুনিক ফুটবলের অন্যতম সেরা দ্বৈরথ ইতালিয়ান লিগের ‘মিলান ডার্বি’। শক্তিশালী দল আর যোগ্য প্রতিদ্বন্দ্বিতার অভাবে শেষ একদশক বেশ ম্যাড়ম্যাড়ে ছিল এসি ও ইন্টার মিলানের লড়াই। গত দুই বছর ধরে নিজেদের গুছিয়ে এনে আবারও লড়াইয়ে নেমেছে দুই জায়ান্ট, মঙ্গলবার যার প্রমাণ দিলেন লুকাকু ও ইব্রা।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

কোপা ইতালিয়ার কোয়ার্টার ফাইনালে নিজেদের মাঠ সান সিরোতে মুখোমুখি হয়েছিল এসি মিলান ও ইন্টার মিলান। ক্লাব ক্যারিয়ারে নিজের ৪৯৯তম গোল দিয়ে ৩১ মিনিটে এসি মিলানকে এগিয়ে নেন ইব্রাহিমোভিচ।

বিজ্ঞাপন

এসি মিলান এগিয়ে যাওয়ার পরপরই ধীরে ধীরে বাড়তে শুরু করে ম্যাচের উত্তাপ। আঁচটা পাওয়া গেছে প্রথমার্ধের শেষে দুই দলের খেলোয়াড়রা টানেল দিয়ে নিজ নিজ ড্রেসিংরুমে যাওয়ার পথে। কথার লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়েন সাবেক দুই সতীর্থ লুকাকু ও ইব্রা।

বেলজিয়ান ফরোয়ার্ড লুকাকুকে ‘গাধা’ গালি দিয়ে ইব্রা বলেছেন, ‘তোমার এসব কালোযাদু অন্য কোথাও গিয়ে করো।’ এসময় লুকাকুর মাকে জড়িয়েও গালি দিতে শোনা গেছে সুইডিশ ফরোয়ার্ডকে।

ইব্রার কথা শুনে তেড়ে যান লুকাকু। পাল্টা জবাবে সুইডিশ তারকার স্ত্রী নিয়ে গালি দেন তিনি। বাধ্য হয়ে তাকে বুঝিয়ে শুনিয়ে টানেলে নিয়ে যান ইন্টার কোচ আন্তনিও কন্তে। দুই খেলোয়াড়কে হলুদ কার্ড দেখিয়ে সতর্ক করে দেন রেফারি।

ম্যাচের ৫৮মিনিটে আরেক হলুদ কার্ড দেখে এসি মিলানকে ১০ জনের দল বানিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় ইব্রাহিমোভিচকে। সুযোগে চেপে ধরে ৭০ মিনিটে পেনাল্টি থেকে সমতা ফেরান লুকাকু। অতিরিক্ত সময়ে ফ্রি-কিক থেকে গোল করে ইন্টার মিলানকে সেমিতে তোলেন ক্রিস্টিয়ান এরিকসেন।