চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

লম্বা রেসের ঘোড়া

জন্মদিনে সহকর্মী ও ভক্ত অনুরাগীদের শুভেচ্ছায় সিক্ত জনপ্রিয় অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী…

থিয়েটার দিয়ে শুরু। এরপর ছোটপর্দা ও সিনেমায় সমানতালে দাপট দেখিয়ে চলা চরিত্রাভিনেতার নাম চঞ্চল চৌধুরী। ছোটপর্দায় নিয়মিত অভিনেতা হিসেবে তাকে পাওয়া গেলেও বাংলাদেশের গত এক যুগের সবচেয়ে আলোচিত এবং একইসঙ্গে ব্যবসা সফল সিনেমাগুলোর সাথেও জড়িয়ে আছে তার নাম।

মনপুরা, মনের মানুষ, টেলিভিশন, আয়নাবাজি এবং সর্বশেষ দেবী দিয়ে মাত করেছেন সিনেমা অঙ্গণ। প্রচলিত অর্থে তারমধ্যে নেই নায়কোচিত হাবভাব। ব্যক্তিত্ব, অভিনয়ে সতস্ফূর্ততার কারণে দর্শকের কাছে ভরসার নাম হয়ে উঠেছেন তিনি। সিনেমায় তার অভিনয় দেখতে আকালের দিনেও তাই প্রেক্ষাগৃহে হুমড়ি খেয়ে পড়ে হাজারও মানুষ। এর প্রমাণ তিনি বার বার দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

সব মাধ্যমেই অভিনয়ে সাবলিল এই জনপ্রিয় অভিনেতার অভিনয় ক্যারিয়ার প্রায় দুই যুগ। এখনও যে কোনো চরিত্রে মানিয়ে যান বহুরূপী চঞ্চল। কেউ কেউ তাকে বলেন, লম্বা রেসের ঘোড়া। অন্তত সিনেমার বেলায় এ কথাটি বিশ্বাস করেন তার সহকর্মী নির্মাতা, অভিনেতারাও। তবে চঞ্চল চৌধুরীর ভক্ত অনুরাগীদের বিরাট অংশ তাকে নিয়মিত চলচ্চিত্রে দেখতে চান।

যদিও চঞ্চল চৌধুরীর চলচ্চিত্রে অভিনয়ের গ্রাফ বলে, তিনি দেখে শুনে এবং বুঝে প্রতিটি সিনেমায় পা রেখেছেন। একটি সিনেমা থেকে অন্য আরেকটি সিনেমার দূরত্ব কয়েক বছর! নাটকে তাকে নিয়মিত বিভিন্ন ধরনের চরিত্রে পেলেও সিনেমার বেলায় কেন এমন?

বিজ্ঞাপন

আয়নাবাজি মুক্তির পর এই অভিনেতাকে এমন প্রশ্ন করা হলে সেসময় তিনি জানিয়েছিলেন,‘প্রত্যেক বছর ভালো গল্পের, ভালো নির্মাণের ছবি করতে চাই। আর সেটা করার জন্য আমি বছরের পর বছর অপেক্ষা করি। এই যেমন মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর টেলিভিশনের পর চার বছর আমাকে অপেক্ষা করতে হলো ‘আয়নাবাজি’র জন্যে। এই যে অপেক্ষা এইটা মধুর। একটা ভালো গল্পের ছবির জন্য আমি আরো বেশিদিন অপেক্ষা করতে পারবো।’

তার মতে, সিনেমা করি নিজের ভালো লাগা থেকে। এই কাজগুলোই আমি আসলে করতে চাই। আর আমার সাথে যায় বলেই কিন্তু অন্যদিকে সুযোগ থাকলেও নিজেকে বেচে দেইনি। জনপ্রিয়তাটা আমি টাকা কামানোর জন্য ব্যবহার করিনি। মনপুরা’র জনপ্রিয়তা বেচে দেইনি। বা অন্য ছবিতে অভিনয় করে যে দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছি তা যেথায় সেথায় বিকিয়ে দেইনি। মনপুরা, টেলিভিশন বা আয়নাবাজি ছবিতে অভিনয়ের পর বহু সিনেমায় অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছি। কিন্তু তা করেনি।

নাটক, সিনেমায় স্বকীয়তার স্বাক্ষর রাখা চঞ্চল যেন এই সময়ে আরো ধারালো। সময়ের সাথে মাধ্যম হিসেবে যোগ হয়েছে ‘ওভার দ্য টপ’ (​ওটিটি)। টিভি নাটক কিংবা সিনেমার পাশাপাশি এই মাধ্যমেও চঞ্চল অল্প সময়ে নিজের সক্ষমতার প্রমাণ দিয়েছেন। তাকদীর নামের ওয়েব সিরিজে নাম ভূমিকায় অভিনয় করে সাড়া ফেলেছেন। শুধু দেশের দর্শক নয়, ভারতীয় দর্শকদের কাছেও এখন প্রিয় অভিনেতা চঞ্চল।

তাকদীর ছাড়াও সম্প্রতি আরো কয়েকটি ওয়েব কন্টেন্টে কাজ করে প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। এরমধ্যে ওয়েব সিরিজ ‘কন্ট্রাক্ট’ এর ব্ল্যাক রঞ্জু বাংলাদেশ-ভারতের দর্শকদের কাছে তুমুল প্রশংসিত হয়েছে। দর্শক অপেক্ষায় আছে এর দ্বিতীয় সিজনের জন্য।

এছাড়াও তার অভিনীত অন্তত তিনটি বহুল প্রতীক্ষিত। এরমধ্যে গিয়াসউদ্দিন সেলিমের পাপপুণ্য, মেজবাউর রহমান সুমনের হাওয়া এবং বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিতব্য শ্যাম বেনেগালের ‘বঙ্গবন্ধু’ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।