চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

লতিফুর রহমানের নামে আসামে পুরস্কার ঘোষণা

ট্রান্সকম গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত লতিফুর রহমানের নামে পুরস্কার প্রবর্তনের ঘোষণা দিয়েছে ভারতের আসাম রাজ্যের বালিপাড়া ফাউন্ডেশন।

আগামী বছর (২০২১) থেকে ‘লতিফুর রহমান নেচারনোমিকস অ্যাওয়ার্ড’ নামে এ পুরস্কার দেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

পার্বত্য চট্টগ্রাম, সিলেট এবং খুলনার সুন্দরবন এলাকায় প্রকৃতি ও জীবিকার জন্য অসামান্য কাজের স্বীকৃতি হিসেবে দেওয়া হবে এই পুরস্কার।

‘ইস্টার্ন হিমালয়ান নেচারনোমিকস ফোরাম ২০২০’ শীর্ষক চার দিনের ভার্চ্যুয়াল সম্মেলন শেষে গত শনিবার এই পুরস্কার চালুর কথা ঘোষণা করা হয়।

বালিপাড়া ফাউন্ডেশন ভারতের আসামভিত্তিক একটি পরিবেশবাদী সংগঠন। এ বছর সংগঠনটির অষ্টম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নেতা ও বিশেষজ্ঞরা। এবারের আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল ‘বাস্তুসংস্থানই অর্থনীতি’।

সম্মেলন শেষে বালিপাড়া ফাউন্ডেশন পুরস্কার প্রদান ও লতিফুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ‘লতিফুর রহমান নেচারনোমিকস অ্যাওয়ার্ড’ প্রবর্তনের ঘোষণা দেওয়া হয়।

ব্যবসাজগতে অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব লতিফুর রহমান গত ১ জুলাই কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার চিওড়া গ্রামের ফারাজ মঞ্জিলে মারা যান। ব্যবসায় সততা চর্চার জন্য তিনি জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে সমাদৃত ছিলেন। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তিনি বেশ কিছু স্বীকৃতি ও সম্মাননা পান।

তিনি দৈনিক প্রথম আলোর পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান মিডিয়াস্টার লিমিটেডের চেয়ারম্যান এবং দ্য ডেইলি স্টার পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান মিডিয়া ওয়ার্ল্ড লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

২০১২ সালে ব্যবসা পরিচালনার ক্ষেত্রে নীতি-নৈতিকতা, সুনাম আর সততার স্বীকৃতি হিসেবে লতিফুর রহমানকে বিজনেস ফর পিস অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়। ২০০১ সালে বাংলাদেশের আমেরিকান চেম্বার অব কমার্সের বিজনেস এক্সিকিউটিভ পুরস্কার পান তিনি।

তিনি সার্ক আউটস্ট্যান্ডিং লিডার অ্যাওয়ার্ড এবং ইউকে বাংলাদেশ ক্যাটালিস্ট অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি থেকে লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ডও গ্রহণ করেন।

লতিফুর রহমান ১৯৬৬ সালে চাঁদপুরে তার পারিবারিক পাটকলের মাধ্যমে ব্যবসা শুরু করেন। ১৯৭১ সাল পর্যন্ত সেখানে নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭২ সালে রহমান পরিবারের মূল উপার্জনকারী প্রতিষ্ঠান ডব্লিউ রহমান জুট মিল জাতীয়করণ হয়। এর পরের বছর লতিফুর রহমান ট্রান্সকম গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেন।

বালিপাড়া ফাউন্ডেশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ট্রান্সকম গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত লতিফুর রহমান ছিলেন বাংলাদেশে সততা চর্চায় নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিত্ব। তার স্মরণে লতিফুর রহমান পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে।

তিনি ছিলেন এমন একজন উদ্যোক্তা, যিনি টেকসই সমাজ গঠনে অক্লান্ত কাজ করে যাওয়ার পাশাপাশি হিমালয়ের পূর্বাঞ্চলে সর্বোচ্চ নৈতিকতা ও সততার চর্চা করে গেছেন। তার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেই সিলেট, চট্টগ্রামের পার্বত্য এলাকা ও খুলনার সুন্দরবন এলাকায় বাংলাদেশের সমৃদ্ধ প্রাকৃতিক ঐতিহ্য রক্ষায় কাজ করার স্বীকৃতি হিসেবে পুরস্কারটি দেওয়া হবে। এ পুরস্কার দেওয়া শুরু হবে ২০২১ সাল থেকে।

হিমালয়ের পূর্বাঞ্চলে প্রকৃতি রক্ষায় এবং সবুজ অর্থনীতির প্রতিষ্ঠায় টেকসই পদ্ধতি গ্রহণের জন্য সম্মেলনে এবার অষ্টমবারের মতো বালিপাড়া ফাউন্ডেশন পুরস্কার দেওয়া হয়। এবার আজীবন সম্মাননা দেওয়া হয়েছে আসামের গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক পরিমলচন্দ্র ভট্টাচার্যকে। এ ছাড়া নেচার কনজারভেন্সি অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশের আরণ্যক ফাউন্ডেশনকে।

সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে বালিপাড়া ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা রঞ্জিত বারঠাকুর বলেন, হিমালয়ের পূর্বাঞ্চলে পরিবর্তন আনতে আরও বহু নায়কের প্রয়োজন রয়েছে। ‘বাস্তুসংস্থানই অর্থনীতি’র পক্ষে কাজ করতে সীমান্তজুড়ে সহযোগিতা জরুরি। একইভাবে জরুরি প্রকৃতিকে এখন যেভাবে মূল্যায়ন করা হয়, সেই দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবর্তন আনা।

বালিপাড়া ফাউন্ডেশন ২০১৩ সালে প্রথম বালিপাড়া ফাউন্ডেশন পুরস্কার ঘোষণা করে। হিমালয়ের পূর্বাঞ্চলে সমৃদ্ধ জীববৈচিত্র্য রক্ষায় অক্লান্ত কাজ করার জন্য তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের উৎসাহিত করতে প্রতি বছর এই পুরস্কার দেওয়া হয়।

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামসহ প্রতিবেশী বাংলাদেশ, নেপাল ও ভুটানে এ ধরনের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাদের কাজে বিনিয়োগও করেছে বালিপাড়া ফাউন্ডেশন। তৃণমূল পর্যায়ের এই কর্মী ও নেতাদের প্রচেষ্টায় এ পর্যন্ত ২ হাজার হেক্টরের বেশি এলাকায় পুনর্বনায়ন এবং ৬০০টির বেশি প্রজাতি রক্ষা সম্ভব হয়েছে। এ ছাড়া দুই হাজার ৮০০ জনের বেশি মানুষের জীবিকায়ও তাদের কাজের প্রভাব পড়েছে।