চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রেমিট্যান্সে প্রণোদনা বাড়ছে না: অর্থমন্ত্রী

১৬০ কোটি ২২ লাখ টাকায় ৫০ হাজার টন নন-বাসমতি সেদ্ধ চাল ক্রয়ের অনুমোদন

প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের ওপর সরকারের দেয়া প্রণোদনার হার এ মুহূর্তে বাড়ানোর চিন্তা-ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বুধবার ভার্চুয়ালি ২৬তম সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে অনলাইন ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

প্রবাসী শ্রমিকদের পাঠানো ৫০০ ডলার বা এর কম রেমিট্যান্সে অতিরিক্ত আরেx ১ শতাংশ প্রণোদনা দেয়ার জন্য সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক সুপারিশ করেছে।

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এ মুহূর্তে প্রণোদনা বাড়াচ্ছি না। ২ শতাংশ প্রণোদনা ঠিক আছে। প্রণোদনার ক্ষেত্রে রেভিনিউ এলাকায় নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরি করা যায় কিনা সেটা দেখবো। এর পরিসর যতটা বাড়ানো যায় ততোটা চেষ্টা করবো। এখন ইনসেনটিভ বাড়ানোর চিন্তা-ভাবনা করছি না। রেমিট্যান্সে ইনসেনটিভের হার একই দেয়া হচ্ছে। কেউ কেউ বলছেন যাদের আয় কম তাদের ইনসেনটিভ বাড়াতে, তবে আমাদের সেরকম চিন্তা-ভাবনা নেই। যে যে পরিমাণ আয় করবে তা বৈধপথে পাঠালে প্রণোদনা পেয়ে যাবে।

বিজ্ঞাপন

আজকে ক্রয় কমিটির অনুমোদনের জন্য ১১টি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছে। প্রস্তাবনাগুলোর মধ্যে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ৫টি, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ২টি, শিল্প মন্ত্রণালয়ের ২টি, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ১টি এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের ১টি প্রস্তাবনা ছিল। ক্রয় কমিটির অনুমোদিত ১১টি প্রস্তাবের মধ্যে ৯টিতে মোট অর্থের পরিমাণ ১ হাজার ৩৪২ কোটি ৮০ লাখ ২ হাজার ১৭৬ টাকা। মোট অর্থায়নের মধ্যে জিওবি থেকে ব্যয় হবে ৯১০ কোটি ৯৭ লাখ ২৮ হাজার ৬৯৯ টাকা এবং বিশ্বব্যাংক ও দেশীয় ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়া হবে ৪৩১ কোটি ৮২ লাখ ৭৩ হাজার ৪৭৭ টাকা।

এর মধ্যে ৫০ হাজার টন নন-বাসমতি সেদ্ধ চাল ১৬০ কোটি ২২ লাখ ১১ হাজার ২০০ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। খাদ্য অধিদপ্তরকে ৩২০ কোটি ২৩ লাখ ৪৯ হাজার ৪০ টাকায় ১টি স্টিল সাইলো ফর রাইস ক্রয়ের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

ঝিনাইদহ-কুষ্টিয়া-পাকশী-দাশুরিয়া জাতীয় মহাসড়কের কুষ্টিয়া শহরাংশ ফোর লেনে উন্নীতকরণসহ অবশিষ্টাংশ যথাযথ মানে উন্নীতকরণে ১৪৫ কোটি ৪৯ লক্ষ ৮৬ হাজার ১৩ টাকায় ক্রয় প্রস্তাব পুনঃ মূল্যায়নের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশন (বিসিআইসি) কর্তৃক কর্ণফুলী ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেড (কাফকো), বাংলাদেশের কাছ থেকে ৩০ হাজার টন ব্যাগড গ্র্যানুলার ইউরিয়া সার ১১১ কোটি ৫৯ লাখ ২৪ হাজার ৪৩৭ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। টিএসপি কমপ্লেক্স লিমিটেডের জন্য ১০ হাজার টন ফসফরিক এসিড ৫৭ কোটি ৩৩ লাখ ৯৫ হাজার ৫১০ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

‘ঢাকাস্থ মিরপুর পাইকপাড়ায় সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারীদের জন্য বহুতল আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ’ প্রকল্পের পূর্ত কাজে ১৬৪ কোটি ৭১ লাখ ৮৭ হাজার ৮৮২ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।