চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রিয়ালের ঘাড়ে বার্সা

মৌসুমে মেসির প্রথম গোল, তবে জোড়া লাল কার্ডে কাবু কাতালানরা

মৌসুম শুরুর আগেই পড়েন ইনজুরিতে। পুরো ফিটনেস পাওয়ার আগে দলের প্রয়োজনে নেমেছেন মাঠে। কিন্তু গোল মেলেনি। এদিন প্রিয় প্রতিদ্বন্দ্বী সেভিয়ার বিপক্ষেই মৌসুমের প্রথম গোল পেলেন অধিনায়ক লিওনেল মেসি। তার গোলের ফেরার দিনে বড় জয়ও পেয়েছে বার্সেলোনাও। সেভিয়াকে ৪-০ গোলের ব্যবধানে উড়িয়ে দিয়েছে স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়নরা।

এই জয়ে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের ঘাড়ের কাছে চলে গেল বার্সা। সেভিয়া ম্যাচের আগে লস ব্লাঙ্কোসদের চেয়ে পাঁচ পয়েন্ট পিছিয়ে থেকে চার নম্বরে ছিল কাতালান। এক জয়ে এখন দুই পয়েন্ট কম নিয়ে দুই নম্বরে আর্নেস্টো ভালভার্দের দল।

বিজ্ঞাপন

আট ম্যাচে শীর্ষে থাকা রিয়ালের পয়েন্ট ১৮, সমানসংখ্যক ম্যাচের বার্সার পয়েন্ট ১৬। আন্তর্জাতিক বিরতির পর ২৬ অক্টোবর মৌসুমে প্রথম এল ক্লাসিকোতে মুখোমুখি হবে দুদল। ওই রিয়াল জিতলে আবার অনেকটা এগিয়ে যাবে, আর বার্সার সুযোগ থাকবে রিয়ালকে পেছনে ঠেলে শীর্ষে ওঠার।

ঘরের মাঠে ন্যু ক্যাম্পে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক খেলতে থাকে বার্সেলোনা। যদিও গোল করার মতো ভালো সুযোগ প্রথমে পেয়েছিল সেভিয়াই। ১১ মিনিটে লিকাস ওকাম্পোসের পাস থেকে দারুণ এক কোণাকোণি শট নিয়েছিলেন লুক ডি ইয়ং। তবে অসাধারণ দক্ষতায় সে শট ফিরিয়ে দেন বার্সা গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টের-স্টেগেন।

১৬ মিনিটে ছোট ডি-বক্সে একবারে ফাঁকায় বল পেয়েছিলেন জেরার্ড পিকে। কিন্তু ঠিকভাবে বলের নিয়ন্ত্রণ নিতে না পারায় সে সুযোগ নষ্ট হয়। পরের মিনিটে সুযোগ ছিল সেভিয়ারও। ওকাম্পাসের হেড থেকে ফাঁকায় বল পেয়েছিলেন লুক ডি ইয়ং। কিন্তু লক্ষ্য ঠিক রাখতে পারেননি।

বিজ্ঞাপন

২৬ মিনিটে এগিয়ে যেতে পারতো সেভিয়া। ওকাম্পাসের ক্রস থেকে দারুণ হেড দিয়েছিলেন লুক ডি ইয়ং। কিন্তু অল্পের জন্য বার পোস্টের উপর দিয়ে লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। উল্টো পাল্টা আক্রমণে গোল খেয়ে বসে দলটি। নেলসন সেমেদোর ক্রস থেকে দারুণ এক বাইসাইকেল কিকে জাল খুঁজে নেন লুইস সুয়ারেজ। চার মিনিট পরই ব্যবধান দ্বিগুণ করে বার্সা। বাঁ-প্রান্ত থেকে আর্থার মেলোর নিখুঁত এক পাসে সেভিয়ার গড়া অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে আলতো টোকায় দিক বদলে লক্ষ্যভেদ করেন আর্তুরো ভিদাল।

৩৫ মিনিটে ফ্রি-কিক থেকে নেয়া মেসির শট অল্পের জন্য লক্ষ্যে থাকেনি। পরের মিনিটে ব্যবধান আরও বাড়ায় বার্সা। দারুণ এক গোল দেন উসমান ডেম্বেলে। আর্থারের কাছ থেকে বল পেয়ে ডি বক্সে ঢুকে এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে দারুণ এক কোণাকোণি শটে জাল খুঁজে নেন এ ফরাসি তারকা।

৬০ মিনিটে দুর্দান্ত মেসি। পাঁচ খেলোয়াড়কে কাটিয়ে কোণাকোণি শট নিয়েছিলেন। তবে দারুণ দক্ষতায় ঝাঁপিয়ে পরে ঠেকিয়ে দেন সেভিয়া গোলরক্ষক থমাস ভাসলিক। পরের মিনিটে পিকের হেড অল্পের লক্ষ্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ৬৮ মিনিটে ভিদালের বাড়ানো বলে গোলরক্ষককে একা পেয়েও বল আকাশে মারেন ডেম্বেলে।

৭৮ মিনিটে গোল পান মেসি। ডি-বক্সের সামান্য বাইরে থেকে নেয়া ফ্রি-কিকে লক্ষ্যভেদ করেন এ আর্জেন্টাইন। ৮৩ মিনিটে সুয়ারেজের সঙ্গে দেয়া-নেয়া করে দূরপাল্লার দারুণ শট রাকিটিচ। অল্পের জন্য নিশানা ঠিক থাকেনি।

৮৬ মিনিটের মেসির দূরপাল্লার শট লুফে নেন সেভিয়া গোলরক্ষক। পরের মিনিটে সুয়ারেজ পেতে পারতেন দ্বিতীয় গোল। মেসির কাছ থেকে বল পেয়েও গোলরক্ষকের গায়ে মারেন তিনি।

৮৯ মিনিটে নয় জনের দলে পরিণত হয় বার্সেলোনা। সেভিয়ার হার্নান্দেজকে ডি-বক্সের সামান্য বাইরে ফাউল করেন বদলী খেলোয়াড় রোনাল্ড আরুজো। ফলে তাকে লাল কার্ড দেখান রেফারি। সে সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করায় ডেম্বেলেকেও লাল কার্ড দেখান তিনি। এরপর সার্জিও বুটসকেটসকেও হলুদ কার্ড দেখান। তবে এ থেকে কোনো সুবিধা আদায় করে নিতে পারেনি অতিথিরা।

Bellow Post-Green View