চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রাম রহিম সিং এর কন্যা হানিপ্রীত ইনসান আটক

ডেরা সাচ্চা সৌদা’র প্রধান কথিত ধর্মীয় গুরু গুরমিত রাম রহিম সিং এর পালিত মেয়ে হানিপ্রীত ইনসানকে  আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সকালে টেলিভিশনে তাকে দেখার পর চন্ডিগড় প্রধান সড়ক থেকে ৩৬ বছর বয়সি হানিপ্রীত ইনসানকে আটক করে পুলিশ।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

ধর্ষণের দায়ে রাম রহিম সিং কে আটকের পর পুলিশি তল্লাশিতে বেড়িয়ে আসে অবাক করার মত  নানা ধরনের অপকর্মের কথা। সেখানে তার সবচেয়ে কাছের সহযোগি ছিলো তার পালক মেয়ে হানিপ্রীত ইনসান। তাকেও পুলিশ অনেক দিন ধরে খুঁজছিলো।

রাম রহিম সিংকে পালাতে সাহায্য করা, আটকের পর সহিংসতা তৈরি করা, বিদ্রোহীদেরকে উষ্কানি দেয়ার জন্য হরিয়ানা প্রদেশের মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকা ভুক্ত ছিলো হানিপ্রীত ইনসান। এয়ারপোর্ট, সীমান্ত এলাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছিলো পুলিশ।

মঙ্গলবার সকালে নিউজ ২৪ চ্যানেলের এক জনপ্রিয় অনুষ্ঠানে অংশ  গ্রহণ করার কয়েক ঘন্টা পর তাকে আটক করা হয়। আগামীকাল তাকে কোর্টে চালান করা হবে।  এসময় তিনি সাক্ষাৎকারে বলেন, আমি আমার বাবা ও আমার বিরুদ্ধে অভিযোগে আনায় খুবই ভেঙ্গে গেছি এবং হতাশ হয়েছি। বাবা জেলে যাওয়ায় আমার মনে হয়েছে আমার পৃথিবী ভেঙ্গে গেছে।

বিজ্ঞাপন

তিনি রাম রহিম সিং ও নিজেকে নির্দোষ এবং দেশপ্রেমিক হিসাবে আখ্যায়িত করে বলেন, আমরা দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছি র্দীঘ দিন ধরে। আমি ও বাবা দুজনে দেশপ্রেমের ছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে আমাদের ভক্তদের দেশপ্রেমে উদ্ভুদ্ধ করে আসছি। আজকে তার এই হাল। তবে ধর্ষণের ব্যাপারে তিনি বলেন, কোটি কোটি নারী এবং মেয়েরা বাবার মাধ্যমে ক্ষমতা প্রাপ্ত হন। দু’জন নারীকে দিয়ে সব বিচার করলে হবে না।

তার এবং রাম রহিম সিং বাবা মেয়ের একটি পবিত্র সম্পর্ক নিয়ে মানুষ প্রশ্ন তুলেছে। কিন্তু কোনো প্রমাণ আছে? নেই, সুতরাং এই ধরণের মানুষকে বিশ্বাস করবেন না।

হানিপ্রীত ইনসানকে রাম রহিমের সবচেয়ে কাছের সহযোগী এবং তাকে বাবার পরী বলে ডাকা হতো। রাম রহিমের আটকের পর ডেরা সাচ্চা সৌদা’র প্রধান বলে দাবি করেন।

গত ২৫ আগস্ট  দুই নারী ভক্তকে ধর্ষণ মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে ভারতের তথাকথিত ধর্মগুরু ডেরা সাচ্চা সৌদা’র প্রধান গুরমিত রাম রহিম সিংকে ২০বছরের কারাদণ্ড দেয়  আদালত।

হরিয়ানার রোহতাক কারাগারের ভেতরে গঠিত  সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত রাম রহিমের বিরুদ্ধে এ রায় ঘোষণা করার পর দাঙ্গায় প্রাণ হারায় অন্তত ৩৮ জন ।