চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রাজনীতিতে যোগ দেননি, এজন্যই কি সোনুর ঘরে তল্লাশি?

কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে অভিনেতা সোনু সুদের বিরুদ্ধে। যদিও সোনু সুদ কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। এক সংবাদমাধ্যমের কাছে সোনু জানিয়েছেন, তাকে দুইবার রাজ্যসভার সদস্য হওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন।

প্রশ্ন উঠেছে, রাজনীতিতে যোগ না দেয়ার জন্যই কি তাকে হয়রানি করা হচ্ছে? প্রশ্ন তুলেছেন ভক্তরা।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি সোনু সুদ জানিয়েছেন, করোনায় আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হওয়ার পর দুইবার রাজ্যসভার সদস্যপদের প্রস্তাব পেয়েও ফিরিয়ে দিয়েছেন তিনি। এই মুহূর্তে তিনি রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার জন্য প্রস্তুত নন।

সোনুর মতে, একজন ভালো রাজনীতিবিদ একটি ভালো দেশ গড়ে তোলেন। দেশে এখন অনেক ভালো নেতা আছেন যাদের অনুসরণ করে সবাই। তিনি যদি রাজনীতিতে যোগ দেয়ার কথা ভাবেন, তাহলে তিনিও ঠিক মতো কাজ করবেন।

অভিনেতা আরও জানান, কখনই তিনি ভাবেননি যে মানুষের উপকার করার সুযোগ পাবেন।

বিজ্ঞাপন

সোনুর ফাউন্ডেশনের তথ্য এখন আইটি ডিপার্টমেন্ট যাচাই করছে। তিনি যত মানুষকে সাহায্য করেছেন সব তথ্য সংরক্ষণ করা আছে। শুধু তাই নয়, ফাউন্ডেশনের কাছে যত অনুদান এসেছে সেসব তথ্যও সংরক্ষিত আছে। এজেন্সির কর্মকর্তারা সব কাগজ দেখেছেন এবং সন্তুষ্ট হয়ে ফিরে গেছেন।

অভিনেতার বিরুদ্ধে আয়কর ফাকি দেয়ার অভিযোগ ওঠার পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি স্ট্যাটাস দিয়েছেন, ‘পুরো গল্প আপনার বলতে হবে না, সময়ই বলে দেবে।

কিছুদিন আগে স্কুলের মেন্টরশিপের জন্য দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সঙ্গে দেখা করেন অভিনেতা। তারপর থেকেই জল্পনা শুরু হয়, এই রাজনৈতিক দলে কি যোগ দিচ্ছেন তিনি? আর তারপরেই আয়কর বিভাগ হানা দেয় তার বাড়িতে। এই প্রসঙ্গে সোনু বলছেন, ‘আমাকে যেখানে নিমন্ত্রণ দেয়া হবে সেখানেই যাব। যে কোনো শহরেই।’

কালে সাধারণ মানুষের ‘সুপারহিরো’ হয়ে ওঠেন সোনু সুদ। তার বাড়ির সামনে সাহায্যের আশায় এসে কেউ খালি হাতে ফেরত যান না। এই সোনু সুদের বিরুদ্ধেই কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগ তুলেছে আয়কর বিভাগ।

প্রায় তিনদিন ধরে চলে তল্লাশি চালিয়ে সনু সুদের বিরুদ্ধে আয়কর বিভাগের অভিযোগ, সোনু সুদ ১৮ কোটি টাকা ডোনেশন হিসেবে তুলেছিলেন। কিন্তু তার মধ্যে মাত্র ১.৯ কোটি টাকা ত্রাণের কাজে তিনি লাগিয়েছেন।