চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ভারী বর্ষণে রাজধানীর জনজীবন বিপর্যস্ত

রাজধানী ঢাকায় সোমবার মধ্যরাত থেকেই বৃষ্টিপাত হচ্ছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হয় ঝড়ো হাওয়াসহ প্রবল বর্ষণ। এতে রাজধানীর অনেক রাস্তা তলিয়ে গেছে, সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতা। ফলে অফিসগামী ও অন্যান্য পেশাজীবী মানুষ পড়েছেন বিপাকে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, মঙ্গলবার ভোর ৬টার আগের ২৪ ঘণ্টার ঢাকায় ২১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

ভোর থেকে শুরু হওয়া ভারী বর্ষণে রাজধানীর মিরপুর, পান্থপথ, গ্রিন রোড, কলাবাগান, কাঠালবাগান, হাতিরপুলসহ বিভিন্ন এলাকার রাস্তা পানিতে তলিয়ে যায়। এতে স্থানীয়দের চলাচল প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। অনেক দোকান-পাট ও বাড়িঘরের মধ্যে পানি ঢুকে গেছে বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার সকাল ৭টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত সময়ে ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকার পূর্বাভাসে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, আকাশ মেঘলা থাকতে পারে। বৃষ্টি বা বৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়া বয়ে যেতে পারে। দক্ষিণ/দক্ষিণপশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৮ থেকে ১৫ কিলোমিটার বেগে বাতাস বইতে পারে, যা ৩০ কিলোমিটার বেগে দমকা হাওয়া আকারেও বয়ে যেতে পারে। ঢাকার বাতসে আর্দ্রতার পরিমাণ ৯১ শতাংশ।

এদিকে আগের দিন সোমবার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, দেশে ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে ঝড় হতে পারে। এ কারণে দেশের নদীবন্দরগুলোতে সতর্ক সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অফিস। এক্ষেত্রে কোথাও ২ নম্বর সতর্ক সংকেত, কোথাও এক নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে পাবনা, বগুড়া, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, বরিশাল, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার এবং সিলেট অঞ্চলের উপর দিয়ে পশ্চিম অথবা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৬০ থেকে ৮০ কিমি বেগে ঝড়ো হাওয়া সঙ্গে বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হতে পারে।

এছাড়া দেশের অন্য স্থানে একই দিক থেকে ৪৫-৬০ কিমি বেগে ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হতে পারে। তাই এসব এলাকার নদীবন্দরকে এক নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। নৌযান চলাচলের ক্ষেত্রে বাড়তি সতর্কতার কথা বলা হয়েছে।