চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রপ্তানি বাড়াতে কৃষি পণ্যের মান যাচাইয়ের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ৮ প্রকল্পের অনুমোদন

বিদেশে কৃষিপণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে কঠোরভাবে পণ্যের মান যাচাই করার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে তিনি এ নির্দেশনা দেন। বৈঠকে ৮টি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে নতুন প্রকল্প ৭টি আর ১টি প্রকল্পে ব্যয় বাড়ানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

প্রকল্পগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো-বিদেশে সবজি রপ্তানিতে নিরাপত্তা ও গুণগত মান অক্ষুণ্ণ রাখতে ঢাকার শ্যামপুরের কেন্দ্রীয় প্যাকিং হাউসে স্থাপিত উদ্ভিদ সঙ্গনিরোধ ল্যাবরেটরিকে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ল্যাবরেটরিতে রূপান্তর করার প্রকল্প। এই প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৫৬ কোটি ৩৬ কোটি টাকা। প্রকল্পটি অনুমোদনের সময় পণ্যের মান যাচাইয়ের এই নির্দেশনা দেন প্রধামমন্ত্রী।

সভাশেষে এসব বিষয়ে বিস্তারিত জানান পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ‍তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন বিদেশে কৃষিপণ্য পাঠাবেন, কিন্তু সাবধানে যত্নসহকারে পাঠান। হাইজেনিক আইনকানুন মেনে পাঠান। কারণ দেশের মানসম্মানের প্রশ্ন আছে। হাইজিনের প্রশ্ন আছে। রপ্তানি বাজার ধরে রাখতে হবে। সেজন্য আমাদের পণ্যের মান বা স্ট্যান্ডার্ড আছে সেটা ধরে রাখতে হবে।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেন, বর্তমানে কৃষি খাত থেকে প্রায় এক বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয় হয়। এ খাতে রপ্তানি আরো বাড়াতে সঠিকভাবে মান যাচাই করে কৃষিপণ্য রপ্তানি করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। যাতে বিশ্বে বাংলাদেশের সুনাম বাড়ে।

উদ্ভিদ সঙ্গনিরোধ ল্যাবরেটরিকে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ল্যাবরেটরিতে রূপান্তর করার প্রকল্পসহ আজকে মোট ৮টি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে একনেক বৈঠকে।

এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৫ হাজার ৪৪১ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ব্যয় করা হবে ৩ হাজার ৩৩৩ কোটি ৭২ লাখ টাকা। এছাড়া ঋণ নেয়া হবে ২ হাজার ৬০ কোটি ৯৮ লাখ টাকা এবং সংস্থার নিজস্ব তহবিল থেকে ৪৭ কোটি ৯৩ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে।

এর মধ্যে ৬৮৫ কোটি ১৩ লাখ টাকা ব্যয়ে মাদারগঞ্জ-কায়রা- মনসুরগঞ্জ (কাজীপুর)- আবদুল্লাহ মোড় (সরিষাবাড়ী)- ধনবাড়ী সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প, ৩ হাজার ২৬৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ময়মনসিংহে কেওয়াটখালি সেতু নির্মাণ প্রকল্প, ২০৯ কোটি টাকা ১৭ লাখ টাকা ব্যয়ে দারিদ্র বিমোচনের লক্ষ্যে ব্যাপক প্রযুক্তি নির্ভর সমন্বিত সম্পদ ব্যবস্থাপনা (৩ পর্যায়) প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

ক্লাইমেট স্মার্ট এগ্রিকালচার অ্যান্ড ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পে ব্যয় হবে ১০৬ কোটি ২৫ টাকা। দিনাজপুর জেলার ঢেপা, পুনর্ভবা ও টাঙ্গন নদীর তীর সংরক্ষণ প্রকল্পে ব্যয় হবে ১৮০ কোটি টাকা আর বিদ্যমান গ্রিড উপকেন্দ্র ও সঞ্চালন লাইনের ক্ষমতাবর্ধন প্রকল্পে ব্যয় হবে ৭৭৪ কোটি ৮৬ লাখ টাকা।

এছাড়া আরবান রেজাইল্যান্স প্রজেক্ট: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রকল্প ব্যয় বাড়ানো হয়েছে ৬৬ কোটি ১৮ লাখ টাকা।