চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রপ্তানিমুখী শিল্পে ৩৫ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ দেয়া যাবে

রপ্তানিমুখী শিল্প খাতের জন্য ঋণ সীমা শিথিল করা হয়েছে। এ খাতের শ্রমিকদের বেতন-ভাতা দেয়ার জন্য যেই ৫০০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করা হয়েছে, সেই তহবিল থেকে ব্যাংক একক ঋণগ্রহীতার সীমার চেয়েও বেশি ঋণ দিতে পারবে। অর্থাৎ ৩৫ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ দিতে পারবে।

শনিবার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

নিয়ম অনুযায়ী, একজন গ্রাহককে ফান্ডেড, নন-ফান্ডেড মিলে একটি ব্যাংক তার মোট মূলধনের সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ ঋণ দিতে পারে। এ ঋণ সীমা অতিক্রম করলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনাপত্তি নিতে হয়। এখন রপ্তানিমুখী শিল্পখাতের শ্রমিকদের বেতন ভাতা দেওয়া তহবিলে মালিকদের যে ঋণ দেয়া হবে সেটি একক ঋণগ্রহীতার সীমা হিসাবায়নের বাইরে থাকবে। অর্থাৎ ব্যাংক ইচ্ছে করলে একজন গ্রাহককে এক্ষেত্রে ৩৫ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ দিতে পারবে।

ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ব্যাংক কোম্পানি আইন ১৯৯১ এর ১২১ ধারার ক্ষমতাবলে তফসিলী ব্যাংকে আলোচ্য তহবিল হতে প্রদত্ত ঋণে একক ঋণগ্রহীতার সর্বোচ্চ সীমা হিসাবায়নের ক্ষেত্রে ব্যাংক কোম্পানি আইন ১৯৯১ এর ধারা ২৬(খ) এর উপধারা-১ এর বিধান পরিপালন হইতে সাধারণভাবে অব্যাহতি প্রদান করা হলো।

গত ২ এপ্রিল রপ্তানিমুখী শিল্প খাতের শ্রমিকদের বেতন-ভাতা দিতে ৫০০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই তহবিল থেকে কেবল সচল রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিকরা ঋণ পাবেন। এজন্য তাদের এককালিন গুণতে হবে ২ শতাংশ সার্ভিস চার্জ। ৬ মাসের গ্রেস পিরিয়ডসহ এই ঋণের টাকা পরিশোধে সময় পাবে ২ বছর।