চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কেন পালিয়েছেন তা জানালেন আশরাফ ঘানি

পালিয়ে যাওয়া আফগানিস্তান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি বলেছেন, পালিয়ে না গেলে তাকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হতো অথবা প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট নাজিবুল্লাহর মতো ল্যাম্পেপোষ্টে ঝুলিয়ে ফাঁসি দিতো।

তাই জীবন রক্ষায় রক্তপাত এড়াতে পালিয়েছেন তিনি।  গিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতে।  ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, সাময়িক চাপে পড়ে এমন সিদ্ধান্ত নিলেও আবার ফিরে আসবেন তিনি।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে পরিবারসহ আশ্রয় নিয়েছেন আশরাফ ঘানি।  তবে দুই দিনের মধ্যেই আফগানিস্তানে তালেবান সরকার গঠন করা হবে বলে জানা গেছে।  এখন চলছে সেখানে আলোচনা।

তালেবান নিয়ন্ত্রিত আফগানিস্তানে আফগানদের বিমানবন্দরে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। প্রায় ৪৫০০ মার্কিন সেনা কাবুল বিমানবন্দর নিয়ন্ত্রণ করছে, কিন্তু এর বাইরের চেকপোস্টেই আটকে দেওয়া হচ্ছে আফগানদের।

বিজ্ঞাপন

যাদের কোনোই ডকুমেন্ট নেই তারা তো বিমানবন্দরে যেতেই পারছেন না, যাদের আছে তাদেরও যেতে বেশ বেগ পোহাতে হচ্ছে। আর কোনোভাবে বিমানবন্দরে পৌঁছে গেলেও, ভেতরে ঢুকতে করতে হচ্ছে সংগ্রাম।

অনিশ্চয়তা আর শঙ্কার নতুন দিন শুরু করছে সেখানকার নারীরা।

২০ বছর পর আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণার সাথে সাথেই সেখানে অস্থিরতা তৈরি হয়।  গত ১৫ আগস্ট পুরোপুরি দেশটির নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবানরা। সবার আশঙ্কা, ২০০১ সালে তালেবান ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর থেকে আফগানিস্তানে যেসব মানবাধিকার অর্জন করা গিয়েছিল এখন তা আবার হারিয়ে যাবে।

১৯৯০ সালে তালেবান নিয়ন্ত্রণাধীন জীবনে নারীদের পুরোপুরি বোরকা পরতে বাধ্য করা হতো, ১০ বছরের বেশি বয়সী মেয়েদের জন্য শিক্ষা নিষিদ্ধ ছিলো এবং প্রকাশ্যে ফাঁসিসহ নৃশংস শাস্তির ব্যবস্থা ছিলো।

বিজ্ঞাপন