চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যে তিন কারণে ভাওয়াল রাজার অপেক্ষায় ঢাকার দর্শক

ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৯

ঐতিহাসিক ভাওয়াল সন্ন্যাসী মামলা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে ‘এক যে ছিল রাজা’ নির্মাণ করেছেন কলকাতার নির্মাতা সৃজিত মুখার্জী। গেল দুর্গা পূজায় ছবিটি মুক্তি পেয়েছে ভারতে। তবে এবার ঢাকার দর্শকদের জন্য এলো ছবিটি দেখার সুযোগ। আর সেই সুযোগ এনে দিল ঢাকা ‘আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব-২০১৯’।

রাজধানীর ৬টি ভেন্যুতে আটটি বিভাগে দেখানো হচ্ছে বিশ্বের নামি দামি নির্মাতার বহু চলচ্চিত্র। আর এখানেই রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় জাতীয় জাদুঘরের মূল মিলনায়তনে দেখা যাবে সৃজিতের বহুল আলোচিত চলচ্চিত্র ‘এক যে ছিলো রাজা’। উৎসবে ছবিটি দেখানো হচ্ছে ‘এশিয়ান ফিল্ম কম্পিটিশন’ বিভাগে।

ছবিটি শুধু সৃজিতের বলেই ঢাকার দর্শকরা আগ্রহী হয়ে আছেন এমন নয়, ঢাকার দর্শকরা তিন কারণে মুখিয়ে আছে গেল বছর মুক্তি পাওয়া কলকাতার বহুল আলোচিত ছবি ‘এক যে ছিলো রাজা’র জন্য:

১. ছবিটি বাংলাদেশের গাজীপুরের ভাওয়াল সন্ন্যাসের পটভূমিকায় নির্মিত।

Advertisement

২. শ্রী ভেঙ্কটেশ প্রযোজিত ছবিটিতে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া আহসান।

৩. ছবিটির পরিচালক অটোগ্রাফ, চতুষ্কোণের মতো দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্রের নির্মাতা সৃজিত মুখার্জী।

‘এসভিএফ ফিল্মস’ এর ব্যানারে তৈরি হওয়া এই ছবির মূল চরিত্র রাজকুমার রমেন্দ্রনারায়ণ রায়ের ভূমিকায় আছেন যিশু সেনগুপ্ত। ভাওয়াল রাজার বোনের চরিত্রে আছেন জয়া।

ভাওয়ালের জমিদারের বর্ণাঢ্য জীবনের সমাপ্তি হয় মাত্র ২৫ বছর বয়সে এক বিশেষ অসুখে। সেসময় তার সৎকারও করা হয়। কিন্তু ১২ বছর পর তিনি আবারও ফিরে এলে শুরু হয় সম্পত্তি নিয়ে লড়াই আর সেই মামলা চলে ১৬ বছর ধরে। এই গল্পের মূল চরিত্র চারটি। ভাওয়াল রাজা আর তার বোন ছাড়াও গল্পে আছে তার উকিল আর শ্যালক, রাজার স্ত্রীর চরিত্রটিও কম গুরুত্বপূর্ণ নয়।

উকিলের চরিত্রে অভিনয় করছেন অপর্না সেন ও অঞ্জন দত্ত। ডাক্তারের চরিত্রে রুদ্রনীল আর ভাওয়াল রাজার রক্ষিতার চরিত্রে আছেন তনুশ্রী চক্রবর্তী। রাজার স্ত্রী হচ্ছেন রাজনন্দিনী।