চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যেভাবে বাড়তি মেদ ঝরিয়েছেন সারা

বলিউডের নেমেই নিজেকে আলোচনায় নিয়ে এসেছেন সারা আলী খান। দারুণ ফিগার, মিষ্টি চেহারা, অভিনয় নৈপুণ্যের কারণে ইতিমধ্যেই জুটিয়ে ফেলেছেন অনেক ভক্ত। কিন্তু এই স্লিম ফিগারের সারা আলী খানের ওজন এক সময় ছিল ৯৬ কেজি। বিশ্বাস হয়?

বাড়তি ওজনের কারণে আত্মবিশ্বাস কমে গিয়েছিল সারার। তাই সবার কাছে তিনি লাজুক হিসেবেই পরিচিত ছিলেন। পড়ুয়াও ছিলেন। কলাম্বিয়ায় যখন পড়াশোনা করতেন, তখন প্রচুর পিজ্জা খেতেন। আর তাছাড়া তার পলিস্টিক ওভারি সিনড্রোম ছিল। তাই ওজন বাড়ছিল অনিয়ন্ত্রিতভাবে। একারণে কেউ ভাবতে পারেনি যে সারা বলিউডে অভিনয় করবেন কখনো। কফি উইথ করণ অনুষ্ঠানে বাবা সাইফ আলী খানের সঙ্গে এসে নিজের ওজন কমানোর দিনগুলো সম্পর্কে জানালেন সারা।

সারার মাথায় ওজন কমানোর জেদ চেপে বসে বিশেষ একটি ঘটনার কারণে। ওজন বেড়ে যাওয়ার কারণে এয়ারপোর্টে সারাকে চিনতে পারেননি তার মা। এতে সারার মন ভেঙ্গে যায়। এমনকি ওজন না কমানো পর্যন্ত মায়ের সঙ্গে ভিডিও কলে কথাও বলেননি সারা। এমনি তিনি তার গ্রাজুয়েশনও দ্রুত শেষ করেছেন নিজের ফিগারের প্রতি মনোযোগ দেয়ার জন্য।

সারা

Advertisement

পলিস্টিক ওভারি সিনড্রোম এর কারণে ওজন কমানো কঠিন ছিল সারার জন্য। তবে আত্মবিশ্বাস হারাননি তিনি। প্রিয় পিজার দোকানে যাওয়ার বদলে পাশেই আরেকটি সালাদের দোকান ছিল, সেখানে যাওয়া শুরু করলেন। নিয়মিত ব্যায়াম আর স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া শুরু করার এক বছরের মধ্যে তিনি বাড়তি মেদ ঝড়িয়ে ফেলেছেন

একটি সাক্ষাৎকারে সারা বলেছেন, ‘আমি আবার ৯৬ কেজি হতে চাই না, আবার জিরো ফিগারও চাই না। শারীরিক এবং মানসিকভাবে সুস্থ জীবন চাই।’

বর্তমানে সারা ফিটনেস ট্রেইনার নম্রতা পুরোহিতের অধীনে আছেন। তিনি কারিনা, সোনাক্ষি, মালাইকা অরোরারও ফিটনেস ট্রেইনার।

ফিগার ঠিক রাখতে সারা এখন নিয়মিত পাইলেটস করেন। এছাড়াও সেলিব্রেটি ট্রেইনার কিন্ডি জর্ডেইন এর অধীনে বুট ক্যাম্প ট্রেনিং করেন তিনি। আর বাবার এবং ভাইয়ের সঙ্গে নিয়মিত টেনিস খেলেন সারা। জাঙ্ক ফুড একেবারেই ছেড়ে দিয়েছেন। নিজেকে ফিট রাখতে প্রোটিন বার, সালাদ এবং প্রচুর পানি পান করেন তিনি। টাইমস অব ইন্ডিয়া