চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যেখানে বাংলাদেশের অন্যসব অধিনায়ক থেকে আলাদা ‘আকবর দ্যা গ্রেট’

‘বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক’! বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে অতীত-বর্তমান সব অধিনায়ক থেকে আকবর আলীকে আলাদা করতে এই একটি বিশেষণই যথেষ্ট। এক বিশ্বকাপ জয় অন্য সব অর্জনকে ছাপিয়ে গেলেও আকবরের নেতৃত্ব এমন কিছু কীর্তি গড়ে রেখেছে যা যুব ক্রিকেটে বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়কদের চেয়ে আলাদা!

অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ম্যাচে নেতৃত্ব দেয়ার কীর্তিটা বাংলাদেশকে প্রথম যুব বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে তোলা অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজের। ৪৮টি ম্যাচে অধিনায়ক ছিলেন তিনি। ৩৫ ম্যাচে অধিনায়কত্ব করে তিনে মাহমুদুল হাসান। ২৮ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে চারে আকবর।

বিজ্ঞাপন

তবে আগের দুই অধিনায়কের থেকে আকবরকে আলাদা করেছে নেতা হিসেবে তার জয়ের হার। ২৮ ম্যাচে ২১টিতেই জয় পেয়েছে তার দল। হেরেছে মাত্র ৪টিতে, ২টি হয়েছে পরিত্যক্ত, একটি টাই। জয়ের হার ৮২.৬৯ শতাংশ। মিরাজের ৪৮ ম্যাচে বাংলাদেশ জয় পেয়েছিলো ৩০টিতে, গড়ে ৬৩.৮২ শতাংশ। আর মাহমুদুল হাসানের দল জয় এনে দিয়েছিলো ২২ ম্যাচে, জয়ের হার ছিলো ৬৬.৬৬ শতাংশ। তবে কমপক্ষে ২৫ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছেন এমন অধিনায়কদের মধ্যে জয়ের হার হিসেব করলে বিশ্বে সবার সেরা আকবর।

টানা ম্যাচে নেতৃত্বের রেকর্ডেও আছে আকবরের নাম। ২০১৯ সালের শুরু থেকে বিশ্বকাপের ফাইনাল পর্যন্ত ২৮ ম্যাচে বাংলাদেশের অধিনায়ক ছিলেন তিনি। রেকর্ড বইয়ে তার স্থানটা দুইয়ে। রেকর্ডের শীর্ষে বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক মাহমুদুল হাসান। ২০০৯ সালের মে থেকে ২০১০ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত তার নেতৃত্বে ৩০টি ম্যাচ খেলেছে টাইগার যুবারা। তবে জয়ের রেকর্ডটা বিবেচনায় অবশ্যই সেরা আকবর।

অধিনায়ক আবার উইকেটরক্ষকও, এ তালিকায় সবার উপরে আকবর। যে ২৮ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছেন তার একটিতেই কেবল উইকেটের পেছনে দাঁড়াননি তিনি। ২১ ম্যাচে অধিনায়কত্বের সাথে উইকেটকিপিং করে দুইয়ে পাকিস্তানের বর্তমান অধিনায়ক রোহাইল নাজির। তিনে আছেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম।

বিজ্ঞাপন