চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যুদ্ধবিরতিতে সম্মতি জানিয়েছে ইসরায়েল

টানা ১১ দিন পাল্টাপাল্টি হামলার পর যুদ্ধবিরতিতে সম্মতি দিয়েছে ইসরায়েল। যদিও ঠিক কোন সময় এই বিরতি কার্যকর হবে সে বিষয়ে কিছু জানায়নি দেশটি।

বৃহস্পতিবার ইসরায়েলের নিরাপত্তাবিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে থেকে এ সম্মতি আসে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

ইসরায়েলি মন্ত্রিসভার বিবৃতিতে বলা হয়, মিশরের দেওয়া সমঝোতা প্রস্তাবের ভিত্তিতে যুদ্ধবিরতিতে তারা সম্মত হয়েছে। তবে যুদ্ধবিরতি হবে ‘দ্বিপক্ষীয় ও শর্তহীন’।

এর আগে বুধবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুকে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানান।

বাইডেন বলেন, তিনি গাজা সংঘর্ঘের অবসান চান। যদিও সংঘর্ষ নিয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ যৌথ বিবৃতি দিতে চাইলে যুক্তরাষ্ট্র তার বিরোধিতা করে।

ইসরায়েলের গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, বাইডেনের আহ্বানের জবাবে নেতানিয়াহু বলেছেন, যতক্ষণ না ইসরায়েলের জনগণের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত হচ্ছে ততক্ষণ এমনটা চালিয়ে যাবেন।

বুধবার সকালে সংঘর্ষ শুরু হওয়ার পরে এ নিয়ে চতুর্থ বারের মতো নেতানিয়াহুর সঙ্গে কথা বলেন জো বাইডেন।

বিজ্ঞাপন

তারই প্রেক্ষিতে যুদ্ধবিরতির সম্মতি আসলো ইসরায়েলের পক্ষ থেকে। আর এই যুদ্ধবিরতির সম্মতিকে স্বাগত জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, ইসরায়েলের আয়রন ডোম-মিসাইল প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা পুনরায় গড়ে তুলতে সাহায্য করবে যুক্তরাষ্ট্র।

এদিকে ইসরায়েলের যুদ্ধবিরতির ঘোষণাকে ফিলিস্তিনিদের বিজয় হিসেবে নিচ্ছে হামাস। হামাসের এক মুখপাত্র আল জাজিরাকে বলেন, ইসরায়েলের এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে ফিলিস্তিনিদের বিজয় হয়েছে।

স্থানীয় সময় শুক্রবার রাত ২টা থেকে যুদ্ধবিরতি কার্যকর করবে বলে জানিয়েছে হামাস। যদিও ইসরায়েলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কখন থেকে যুদ্ধবিরতি কার্যকর হবে এ নিয়ে দুই পক্ষ আলোচনা চলছে।

পূর্ব জেরুজালেমে মুসলিম ও ইহুদিদের পবিত্র স্থান আল আকসা নিয়ে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে কয়েক সপ্তাহ ধরে চলমান উত্তেজনার মধ্যে এই পাল্টাপাল্টি হামলা শুরু হয়।

এরই মধ্যে সংঘর্ষে গাজাতে প্রাণ হারিয়েছে ২৩২ জন। তার মধ্যে ১০০ জনেরও বেশি নারী ও শিশু রয়েছে।

ইসরায়েল বলেছে, গাজায় ১৫০ জন জঙ্গিকে তারা হত্যা করেছে। তবে হামাস এখনও তাদের যোদ্ধাদের সঠিক নিহতের সংখ্যা জানায়নি।

আর ইসরায়েলে মারা গেছে ১৩ জন। এর মধ্যে ২ জন শিশু।