চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যুক্তরাষ্ট্রের করোনা পরিস্থিতি থেকে আমাদেরও শিক্ষা নিতে হবে

চীন থেকে করোনার উৎপত্তি হলেও তার মারণ খেলা সবচেয়ে বেশি দেখা গেছে যুক্তরাষ্ট্রে। সেই যুক্তরাষ্ট্র তাদের ভ্যাকসিন কার্যক্রমের মাধ্যমে অনেকটাই করোনা নিয়ন্ত্রণ করেছিল বলে পরিসংখ্যানে দেখা গেলেও সেখানে আবারও সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।

গত এপ্রিলের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় মৃত্যু কিছুটা কমে আসলেও চলতি মাসে তা বাড়তে শুরু করেছে। পাশাপাশি সংক্রমণও কিছুতেই নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না দেশটিতে। গত একদিনে আক্রান্ত রোগী ১ লাখ ৬৪ হাজার ছাড়িয়েছে। এছাড়া শেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ২৪২ জনের। গত সাত মাসের মধ্যে এই সংখ্যা সর্বোচ্চ। এর আগে গত ৩ মার্চ মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৩৩৫ জন। বিষয়টি খুবই উদ্বেগজনক।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্রে ভ্যাকসিন নিতে এখনও সাধারণ মানুষদের মধ্যে একধরনের অনীহা কাজ করছে। এছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর সেখানে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা। দেশটির প্রেসিডেন্ট বাইডেন সেদেশের সব প্রতিষ্ঠানকে তাদের স্টাফদের করোনার ভ্যাকসিন দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করার নির্দেশ দিয়েছেন। একসঙ্গে সাপ্তাহিক করোনা টেস্ট করার কথাও বলেছেন তিনি। বোঝাই যাচ্ছে মার্কিন প্রশাসন আবারও সেই সাত মাসের আগের অবস্থানে ফিরে গেছেন।

এবার আসা যাক আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে। সরকারের ইতিবাচক প্রচেষ্টায় ভ্যাকসিন কার্যক্রম চলছে জোরেশোরে। আর আগস্ট মাস থেকে দেশে করোনার বিধি নিষেধ উঠে গেছে, খুলে গেছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সব কিছু। স্বাস্থ্য বিভাগের নিয়মিত করোনা পরিসংখ্যানে অবশ্য শনাক্ত ও মৃত্যু অনেকাই কমেছে বলে দেখা যাচ্ছে। কিন্তু সারাদেশে করোনার স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে রয়েছে মারাত্মক অবহেলা।

করোনা ঠেকাতে সচেতনতার পাশাপাশি ভ্যাকসিন নেওয়া নিশ্চিত করার বিকল্প নেই, যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মানাও খুব জরুরি। যুক্তরাষ্ট্রের পরিস্থিতি দেখে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে, প্রস্তুত থাকতে হবে যেকোনো পরিস্থিতির জন্য। নয়তো কোনো কারণে যদি করোনার কোনো নতুন ঢেউ আছড়ে পড়ে, তাহলে মারাত্মক সঙ্কটের মধ্যে পড়বে দেশ-জাতি। এটা কোনোভাবেই আমাদের কাম্য নয়।