চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যাত্রীবেশে মহাসড়কে ডাকাতি: প্রাইভেটকারসহ আটক ৪

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসে যাত্রী বহনের নামে ডাকাতির মামলায় একটি প্রাইভেটকারসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ বুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) টাঙ্গাইল।

গ্রেপ্তাররা মূলত যাত্রীবেশে ভয়ংকর ডাকাত চক্রের সক্রিয় সদস্য বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বিজ্ঞাপন

গ্রেপ্তার হওয়া ডাকাত দলের চার সদস্য হলো: সোহেল রানা (৩৬), মিজান (৩৩), সাবাস (৩২), রফিকুল ইসলাম (৩২)। তাদেরকে ঢাকার মিরপুর, মানিকগঞ্জের দৌলতপুর ও গাজীপুরের টঙ্গী থেকে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা ঢাকা, গাজীপুর, মিরপুর ও টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে যাত্রী সেজে দীর্ঘদিন যাবত ডাকাতি করে আসছিল।

বুধবার সকালে টাঙ্গাইল পিবিআই কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন টাঙ্গাইল পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সিরাজ আমিন।

বিজ্ঞাপন

তিনি জানান: পাবনা জেলার সাথিয়া তাঁতীপাড়া গ্রামের মাহতাব হোসেন টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া বাইপাসে গত ২২ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় বাড়ি যাওয়ার জন্য গাড়ি অপেক্ষা করছিল। এসময় একটি সিলভার কালারের প্রাইভেটকার সেখানে এসে থামে। মাহতাবকে ড্রাইভার ১৫০ টাকায় সিরাজগঞ্জ নেয়ার জন্য প্রাইভেটকারের পিছনের সিটে বসতে বলে আরো দুইজন যাত্রী উঠায়।

পিবিআই এর পুলিশ সুপার জানান: গাড়িতে ওঠানো হয় যাত্রীবেসে ডাকাতদলের দুই সদস্যকে। তারা মাহতাবের হাত পা বেঁধে টাকা, মোবাইল ছিনিয়ে নেয় এবং মাহতাবের বাবার কাছ থেকে আরো ২৪ হাজার টাকা বিকাশে আনার জন্য চাপ দেয়। পরে যাত্রীবেশী ডাকাতদল প্রাইভেটকার ঘুরিয়ে মির্জাপুরের কাছে এসে বিকাশ থেকে টাকা উত্তোলন করে মাহতাবকে কালিয়াকৈর এলাকায় নামিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়।

এছাড়াও একই ডাকাতদল গত ২৪ ডিসেম্বর মহাসড়কের নাটিয়া পাড়া বাসস্ট্যান্ড হতে মহেড়া পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারে কর্মরত পুলিশ পরিদর্শক মো. বেলাল হোসেনকেও একই কায়দায় প্রাইভেটকারে উঠিয়ে মারধরসহ খুন জখমের ভয় দেখিয়ে নগদ ৪৪ হাজার টাকা ও বিকাশের মাধ্যমে আরো ২০ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। পরে দুইটি বিষয় নিয়েই টাঙ্গাইল পিবিআই তদন্তে নামে। তদন্তের শেষে ঢাকা মানিকগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেফতাররা ঢাকার গাবতলী থেকে শুরু করে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক হয়ে পাবনা পর্যন্ত যাত্রী সেজে ডাকাতি করে থাকে। আটকদের বুধবার বিকেলে টাঙ্গাইল আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।