চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যমজ নবজাতকের নাম করোনা ও ভাইরাস!

করোনাভাইরাস

মেক্সিকোর একটি হাসপাতালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হওয়া অন্তঃসত্ত্বা নারী আন্নামারিয়া হোসে রাফেল গঞ্জালেস যমজ সন্তান প্রসব করার পর তাদে রেখেছেন করোনা ও ভাইরাস।

যমজ সন্তানদের এমন নাম প্রকাশ্যে আসতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল আন্নামারিয়া হোসে রাফেল।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি মেক্সিকোর জেনারেল লা ভিলায় সিটি হাসপাতালে ওই নারী যমজ সন্তানের জন্ম দেন। গর্ভবতী থাকাকালীন টেস্টে করোনাভাইরাস ধরা পড়ে তার। এরপর থেকে হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন ছিলেন আন্নামারিয়া (৩৪) ।

হাসপাতালের চিকিৎসকেরা জানান, তার একটি ছেলে এবং একটি মেয়ে সন্তান হয়েছে। হাসপাতালের চিকিৎসকদের মধ্যে একজন মজা করে আন্নামারিয়াকে বলেন, ভাইরাস হোসে মিগুয়েল গঞ্জালেস নামে একটি ছেলে এবং কারোনা হোসে মিগুয়েল গোঞ্জালেস নামের একটি মেয়ে হয়েছে তার। নাম দুটো আন্নামারিয়ার খুব পছন্দ। তাই তার সন্তানদের নাম তিনি করোনা ও ভাইরাস রাখার সিদ্ধান্ত নেন।

বিজ্ঞাপন

সন্তানদের এমন নামের পর কী প্রতিক্রিয়া ছিল আন্নামারিয়া হোসে রাফেলের?

সংবাদ মাধ্যমে তিনি জানান, যমজ শিশু জন্মের পর তাৎক্ষণিকভাবে আমার কাছে কোনো নাম ছিল না, একজন চিকিৎসক আমাকে এই নাম রাখতে বলেন। পরে ভেবে দেখি নামটার মধ্যে সুন্দর একটি ধারণা রয়েছে।

ওই হাসপাতালের চিকিৎসক এদুয়ার্দো ক্যাস্তিলাস স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি মজা করে নাম দুটো বলে ফেলেছিলাম। তবে আন্নামারিয়া যে সত্যিই তার সন্তানদের নাম করোনা ও ভাইরাস রাখার সিদ্ধান্ত নেবেন তা আশা করিনি।’

‘‘তবে মা ও তার দুই সন্তানই সুস্থ আছে বলে আনন্দিত গোটা মেক্সিকো সিটি হাসপাতাল। আন্নামারিয়ার ঠিক দুই সপ্তাহ পরে যুক্তরাষ্ট্রের এক হাসপাতালে সন্তান প্রসবের জন্য ভর্তি হওয়ার কথা ছিল। তবে সীমান্তে পৌঁছানোর আগেই তার শারীরিক অবস্থা অবনতি হয়। বাধ্য হয়ে মেক্সিকো সিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে।’’

মেক্সিকোর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এখনও পর্যন্ত দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৪৮। মৃত্যু হয়েছে প্রায় ১৬ জনের। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে মক্সিকোবাসীকে আগামী ১ মাস হোম কোয়ারেন্টাইনের থাকতে নির্দেশ দিয়েছে সরকার।