চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ম্যানসিটির সুবিধাই করে দিল শেফিল্ড

লিভারপুল গত কয়েক সপ্তাহের নিম্নমুখী পারফরম্যান্সে নামতে নামতে টেবিলের পাঁচে নেমে গেছে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের শীর্ষস্থান দখলে পরে ইঁদুর-দৌড় চলছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও ম্যানচেস্টার সিটির মধ্যে। সে পথে রেড ডেভিলদের সবশেষ হারের স্বাদ দিয়ে সিটিজেনদের খানিকটা সুবিধাই করে দিল শেফিল্ড ইউনাইটেড।

ইপিএল টেবিলের একেবারে তলানির দল শেফিল্ড ইউনাইটেড। শুধু অবনমন অঞ্চলেই পড়ে আছে না, একেবারে ২০তম স্থানে আছে বিশ দলের টেবিলে। সেই শেফিল্ডের কাছেই ঘরের মাঠে হেরে বসেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

বিজ্ঞাপন

প্রায় অর্ধশত বছর পর এমন জয়ের স্বাদ পেল শেফিল্ড। বুধবার রাতে তারা ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে গেছে ম্যানইউকে। ১৯৭৩ সালের ডিসেম্বরের পর লিগে প্রথমবার ম্যানইউর ঘরে জয় তুলল তারা।

ওল্ড ট্রাফোর্ডে কেন ব্রায়ানের ২৭ মিনিটের গোলে লিড নেয় শেফিল্ড। ৬৪ মিনিটে সমতা টেনেছিলেন হ্যারি ম্যাগুইরে। কিন্তু ৭৪ মিনিটে অলিভার বার্কে আবারও অতিথিদের এগিয়ে দিলে সেই ফাঁদ কেটে আর বেরোতে পারেনি রেড ডেভিলরা।

বিজ্ঞাপন

ম্যানইউর এমন হারে সুবিধাই হল ম্যানসিটির। আগের রাতে বড় জয়ে টেবিলের শীর্ষে উঠে বসে ছিল পেপ গার্দিওলার দল। এখনও শীর্ষেই আছে। ১৯ ম্যাচে ৪১ পয়েন্ট নিয়ে অবস্থান সুসংহতও হয়েছে।

কিন্তু ম্যানইউ যদি শেফিল্ডের বিপক্ষে জিততে পারত, শীর্ষে ফিরতে পারত অনায়াসে। এখন দুইয়ে থাকতে হচ্ছে। সেটিও সিটিজেনদের চেয়ে এক ম্যাচ কর খেলে। ২০ ম্যাচে ৪০ পয়েন্ট তাদের।

ম্যানসিটির পরের ম্যাচ আবার শেফিল্ডের বিপক্ষেই। ৩০ জানুয়ারি ঘরের মাঠে। জিতলে ম্যানইউর সমান ম্যাচ খেলে পয়েন্ট ব্যবধান বেড়ে হবে ৪, এখন যেটি এক পয়েন্টের ব্যবধান।

ম্যানইউ আবার ৩০ জানুয়ারি খেলতে যাবে আরেক শক্তিশালী দল আর্সেনালের বিপক্ষে। তাতে পয়েন্ট না তুললে সিটিজেনদের থেকে আরও পিছিয়ে পড়তে হবে তাদের। শেফিল্ডের বিপক্ষে হারের খতিয়ান তাই বড় মূল্যেই চোকাতে হচ্ছে ম্যানইউকে।