চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ম্যানইউ অধিনায়ক ভেবেছিলেন ‘তাকে অপহরণ করা হয়েছে’

গ্রিসের ম্যায়াকোন্স দ্বীপে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড অধিনায়ক হ্যারি ম্যাগুয়েরে। তার নামে মারামারি,পুলিশকে ঘুষ দিতে চাওয়াসহ একাধিক অভিযোগ উঠেছে।

কেন এসব করেছেন? জবাবে বিবিসি রেডিওকে ম্যাগুয়েরে জানিয়েছেন, ভেবেছিলেন তাকে অপহরণ করা হয়েছে, তাই প্রাণ বাঁচাতেই ঘুষ দিতে চেয়েছিলেন!

বিজ্ঞাপন

ম্যায়াকোন্স পুলিশের পক্ষে জানানো হয়েছে, গত সপ্তাহে হ্যারি, তার ভাই এবং এক বন্ধু মাঝরাতে একটি পানশালার বাইরে কিছু ব্রিটিশ পর্যটকের সাথে শুরুতে তর্কে এবং পরে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন।

বিজ্ঞাপন

অবস্থা বেগতিক দেখে এলাকার বাসিন্দারা পুলিশে খবর দেন। পুলিশ এসে ঝামেলা মেটানোর চেষ্টা করলে হ্যারি, তার বন্ধু ও ভাই মদ্যপ অবস্থায় পুলিশকে লক্ষ্য করে নোংরা মন্তব্য করেন। এরপরই তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

আদালত ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড অধিনায়ককে ২১ মাস ১০ দিনের জেল হাজতের শাস্তি দিয়েছেন। ক্লাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আপিল করার সুযোগ পেয়েছেন হ্যারি।

বিজ্ঞাপন

দুই রাত হাজতে থাকার পর তার শিক্ষা হয়েছে বলে বিবিসিকে জানিয়েছেন ম্যানইউ অধিনায়ক, ‘খুব ভয়ানক এক অভিজ্ঞতা ছিল। চাই না এমন অভিজ্ঞতা আর হোক। কারোই যেন না হয়। এই প্রথম আমাকে জেলে কাটাতে হয়েছে।’

হ্যারি জানিয়েছেন দুই ব্যক্তি তার ছোট বোন ডেইজিকে মাদক দেয়ার চেষ্টা করছিল। যখন তিনি বোনকে হাসপাতালে নেয়ার চেষ্টা করছিলেন, তখনই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

‘তারা আমাকে মারছিল। তারা আমার পায়ে আঘাত করে বলছিল, আমার ক্যারিয়ার শেষ করে দেবে। আমি আর খেলতে পারবো না।’

হ্যারির পাশাপাশি তার ভাই জো ম্যাগুয়েরে এবং ক্রিস্টোফারও গ্রেপ্তার হয়েছেন। জোয়ের নামে সরকারি কর্মকর্তার গায়ে আঘাত, ঘুষ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ক্রিস্টোফারের নামেও আছে একই অভিযোগ।

এক পুলিশ কর্মকর্তার দাবি, হ্যারি তাকে ঘুষ দিতে চেয়েছিলেন। এসময় তাকে ‘আমাকে চেনো? আমি ম্যানইউ’র অধিনায়ক, আমি অনেক ধনী, আমি তোমাদের টাকা দেবো, আমাদের যেতে দাও বলে’ চিৎকার করতে দেখা গেছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে ম্যানইউ অধিনায়কের দাবি, ‘আপিলের ফলে আমরা আরও সময় পাচ্ছি। সাক্ষী-প্রমাণ উপস্থাপনেরও সুযোগ পাবো। বিশ্বাস করি যে আদালতে আসল সত্যিটা বের হয়ে আসবে।’