চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মোহাম্মদপুরে সংঘর্ষে নিহতের ঘটনায় সাবেক যুবলীগ নেতা গ্রেপ্তার

মোহাম্মদপুরে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের সময় পিকআপ চাপায় দুইজনের মৃত্যুর ঘটনায় আদাবর থানা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক আরিফুল ইসলাম তুহিনকে গ্রেপ্তার করেছে মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ।

শনিবার রাতেই তুহিনকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে এ ঘটনায় নিহত আরিফ হোসেনের বাবা ওমর ফারুকের দায়ের করা একটি মামলায় (নং-৪৯) তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জামাল উদ্দিন মীর চ্যানেল আই অনলাইনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, প্রাথমকিভাবে হামলার ঘটনায় তুহিনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমরা ঘটনাস্থলের আশপাশের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করেছি। আরও কারা জড়িত রয়েছে বিষয়টি যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

ওসি জামাল উদ্দিন মীর আরো জানান, ‘ফৌজদারি আইনের ৩০৪ ধারায় (বেপরোয়া যান চালনায় মৃত্যু) দায়ের করা ওই মামলায় অজ্ঞাত পরিচয় ২০-২৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। ওই মামলায় সাবেক যুবলীগ নেতা তুহিনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আদালতে রিমান্ড চাওয়া হবে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’

ঢাকা মহানগর পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, গ্রেপ্তারকৃত আসামি তুহিনকে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক দ্বন্দ্বে কর্মসূচির কারণে বা পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড কিনা তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। যে কারণেই ঘটনার সূত্রপাত হোক না কেন, তদন্ত করে জড়িতদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।’

শনিবার সকালে মোহাম্মদপুরের লোহারগেট এলাকায় মনোনয়ন পত্র কিনতে যাওয়ার সময় শোডাউনের প্রস্তুতি নিচ্ছিল ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খানের সমর্থকরা। এ সময় কয়েকজন অস্ত্রধারী যুবক তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলার সময় পিকআপ চাপায় আরিফ হোসেন ও মো. সুজন নামে দুইজন নিহত হয়েছেন।

পরে এ ঘটনায় নিহত আরিফের বাবা উমর ফারুক বাদী হয়ে মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা (নং ৪৯) দায়ের করেন।

Bellow Post-Green View