চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মোদীকে টুইটার নিষিদ্ধের অনুরোধ করে হাসির পাত্র কঙ্গনা

গত কয়েকদিন ধরেই বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত একের পর এক বিস্ফোরক টুইট করে ঝড় তুলছেন সোশ্যাল মিডিয়াতে। এবার মাইক্রো-ব্লগিং সাইট টুইটারের বিরুদ্ধে তীর্যক মন্তব্য করলেন এই অভিনেত্রী। এমনকি ভারতে টুইটার ব্যান করার ব্যপারেও কড়া মন্তব্য করেছেন তিনি।

এ বিষয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উদ্দেশ্যে করা টুইটে পৃথ্বীরাজ চৌহানের মতো ভুল না করার আহ্বান জানিয়েছেন কঙ্গনা।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

টুইটে তিনি লিখেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জী, যে ভুল মহান যোদ্ধা পৃথ্বীরাজ চৌহান জী করেছিলেন আপনি সেই ভুল একদম করবেন না। যেই ভুল ছিল কাউকে মাফ করে দেওয়া। টুইটার যতই মাফ চেয়ে থাকুক, আপনি একদম মাফ করবেন না। কারণ তারা ভারতের গৃহযুদ্ধের ষড়যন্ত্র করেছিল। #ব্যানটুইটারইন্ডিয়া

বিজ্ঞাপন

মূলত ভারতের কৃষক আন্দোলন নিয়ে ভুল তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে ১২০০ অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছিল কেন্দ্র। বুধবার টুইটারের তরফে জানানো হয়, তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের পাঠানো তালিকা ধরে অ্যাকাউন্টগুলোর বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে কিছু অ্যাকাউন্ট ভারতে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হবে।

এরপরেই টুইটারের তরফ থেকে আরও একটি টুইট সামনে আসে। জানানো হয়, সংবাদমাধ্যম, রাজনীতিবিদ, আন্দোলনকারীদের টুইটার অ্যাকাউন্টে হস্তক্ষেপ করবে না টুইটার। ভারতীয় সংবিধান মেনেই মানুষের বাক স্বাধীনতার পক্ষে কাজ করে যাবে টুইটার কর্তৃপক্ষ।

সেই টুইটকে কেন্দ্র করে আবারও টুইটারকে ঘিরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তোপ দাগেন কঙ্গনা। ‘কে বানিয়েছে তোমাকে? তুমি কে? তোমাকে প্রধান বিচারপতি কে বানিয়েছে? একদল মাদকাসক্ত আমাদের নিয়ন্ত্রণ করতে চাইছে’- বলে মন্তব্য করেন কঙ্গনা।

টুইটারকে ট্যাগ করে আরও একটি টুইটে কঙ্গনা লেখেন, তোমার টাইম শেষ হয়ে এসেছে। সময় এসেছে ‘কু’ অ্যাপে জয়েন করার। আর তাতেই যেন আরো একবার নেটিজেনদের হাসির পাত্রে পরিণত হলেন এই অভিনেত্রী।