চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মেয়েকে কলেজে ভর্তিতে দুর্নীতি করায় হলিউড অভিনেত্রীর কারাদণ্ড

মেয়েকে কলেজে ভর্তি করানোর কেলেঙ্কারীতে জড়িত থাকার দায়ে যুক্তরাষ্ট্রের অভিনেত্রী ফেলসিটি হাফম্যানের কারাদণ্ড হয়েছে।

দুর্নীতি প্রমাণ হওয়ায় জনপ্রিয় এই হলিউড অভিনেত্রীকে ১৪ দিনের কারাদণ্ড যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত। কারাদণ্ডের সঙ্গে হাফম্যানকে ২৫০ ঘণ্টার কমিউনিটি সার্ভিস এবং ৩০ হাজার ডলার জরিমানাও করেছে আদালত।

বিজ্ঞাপন

বিবিসি বলছে, অভিনেত্রী হাফম্যান ২০১৭ সালে তার বড় মেয়ে সোফিয়ার উত্তরপত্রে গোপনে সঠিক উত্তর লিখে দেয়ার জন্য ১৫ হাজার ডলার ঘুষ লেনদেনের কথা স্বীকার করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় কলেজে ভর্তি কেলেঙ্কারিতে অভিভাবক ও অ্যাথলেটিক কোচসহ মোট ৫০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেলেও শিক্ষার্থীদের এতে অভিযুক্ত করা হয়নি।

রায়ের পর দেওয়া এক বিবৃতিতে হাফম্যান বলেন, ওই সময় যা করেছি তার যৌক্তিক জবাব নেই আমার। আমি পুনরায় আমার মেয়ে, স্বামী, পরিবারের সদস্য এবং শিক্ষা সংশ্লিষ্ট সম্প্রদায়ের সকলের কাছে ক্ষমা চাইছি। বিশেষত ক্ষমা চাই শিক্ষার্থীদের কাছে, যারা কলেজে ভর্তি হতে প্রতিদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে এবং ক্ষমা চাইছি তাদের অভিভাবকদের কাছেও, যারা সন্তানদের জন্য অসম্ভব ত্যাগ করেন’।

আইনজীবীরা অভিযুক্ত হাফম্যানের এক মাসের জেল ও ২০ হাজার ডলার জরিমানা দাবি করেছিলেন। বিবিসি বলছে, হাফম্যানকে ছয় সপ্তাহের মধ্যে কারাগারে হাজির হতে বলেছেন আদালত।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কলেজে ভর্তির এ দুর্নীতিতে নাম আসা অভিভাবকদের বিরুদ্ধে ঘুষ লেনদেন, পরীক্ষার ফল বদলে দেয়ার চেষ্টা, এমনকি আবেদনে সন্তানের ছবি সামান্য পরিবর্তন করে তাকে দুর্দান্ত খেলোয়াড় হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেয়ার চেষ্টা করারও অভিযোগ উঠেছে।

বিজ্ঞাপন

আইনজীবীদের ভাষ্য হলো, অভিভাবকদের অনেকে তাদের সন্তানদের যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল, জর্জটাউন ও স্ট্যানফোর্ডের মতো নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করতে এসব জালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছেন।

আদালতের নথি থেকে জানা যায়, হাফম্যান কলেজ ভর্তি কেলেঙ্কারির মূল হোতা খ্যাত উইলিয়াম সিঙ্গার এর সঙ্গে যোগসাজশে মেয়ে সোফিয়া মেসিকে ভর্তি করানোর চেষ্টা করেন। সিঙ্গার পরে বিশেষ এক স্থানে সোফিয়ার স্যাট পরীক্ষার আয়োজন করেন। যেখানে দেখা যায় হাফম্যানের মেয়ে আগের তুলনায় বেশি নাম্বার অর্জন করেছেন।

চলতি বছরের মে মাসে এক চিঠিতে হাফম্যান তার অপরাধের কথা স্বীকার করেন। একইসঙ্গে তিনি বলেন, তার এই অনৈতিক কাজ সম্পর্কে স্বয়ং সোফিয়া মেসিও অবগত ছিলো না।

হাফম্যান বলেন, মেয়ে আমার কাজে হতাশ হয়ে পড়েছিলো। সে কাঁদতে কাঁদতে আমাকে বলেছিল ‘আপনি আমার ওপর কেন আস্থা রাখেননি? কেন আপনি ভেবে দেখেননি যে, আমি নিজেই এটি করতে পারি?’

মেয়ের এমন হতাশাজনক কথায় আমার কোনো উত্তর ছিলো না। আমি কেবল বলতে পারি যে, ‘আমি দুঃখিত। আমি ভয় পেয়েছিলাম। আমি আসলে বোকা’।

হাফম্যানই যুক্তরাষ্ট্রে কলেজে ভর্তি কেলেঙ্কারিতে সাজা পাওয়া প্রথম অভিভাবক।

একই কেলেঙ্কারিতে হলিউড অভিনেত্রী লরি লাফলিনেরও নাম এসেছে। ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়ার রোয়িং দলে মেয়েদের ভর্তি করাতে ৫০ হাজার ডলার ঘুষ দেয়ার অভিযোগে ২ অক্টোবর স্বামীসহ এ অভিনেত্রীকে আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Bellow Post-Green View