চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মেরুদণ্ডের বাত নিয়ন্ত্রণে রাখতে হলে

এনকাইলোজিং স্পনডাইলাইটিস একটি মেরুদণ্ডের বাতরোগ, সাধারণত একটি স্বাভাবিক মেরুদণ্ডে, ঘাড়ে ও কোমরে দুইটি সি আকৃতির বাকা থাকে যা আমাদের মেরুদণ্ডকে নাড়াতে সাহায্য করে। এ রোগে মেরুদণ্ডের স্বাভাবিক বক্রতা নষ্ট করে ধীরে ধীরে তাকে সোজা করে ফেলে। এতে আক্রান্ত ব্যক্তি মেরুদণ্ডকে নাড়াতে পারে না।

আক্রান্ত রোগী ঘাড় নাড়াতে চাইলে তাকে সমস্ত শরীর নিয়ে ঘুরতে হয়, পরবর্তীতে সামনের দিকে ঝুকে যায় এবং বুকের পাজরের মাংসপেশীগুলো শক্ত হয়ে শ্বাস নিতে কষ্ট হয়।

বিজ্ঞাপন

এ রোগটি নির্ণয়ের জন্য কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন হয়। যেমন: লাম্বো-সেকরাল স্পাইনের এক্স-রে ও কিছু প্যাথলজিক্যাল টেষ্ট, সি আর পি, এইচ এল এ বি ২৭।

বিজ্ঞাপন

চিকিৎসার ক্ষেত্রে দুইটি বিষয় বেশী জরুরী।
১. এটি অটো ইম্যুন ডিজিজ তাই কিছু ওষুধের মাধ্যমে এ রোগকে নিয়ন্ত্রণে রাখা।
২. মেরুদণ্ড ও পাশাপাশি অন্যান্য জয়েন্টগুলির মুভমেন্ট স্বাভাবিক রাখা।

মুভমেন্ট স্বাভাবিক রাখার জন্য চাই সঠিক ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা ও চিকিৎসক কর্তৃক নির্দেশিত ব্যায়াম যা নিয়মিত করে যেতে হবে। এসব ব্যায়াম রোগীর অবস্থার পরিবর্তনের সাথে সাথে পরির্বতন করতে হবে।

রোগীরা নিয়মিত সাঁতার কাটতে পারলে ভাল। কারণ-সাঁতার মেরুদণ্ড ও পাশাপাশি অন্যান্য জয়েন্টগুলির মুভমেন্ট স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে।

এই রোগটি যেহেতু নিরাময়যোগ্য রোগ নয় তাই রোগীকে নিয়মিত একজন বিশেষজ্ঞ ফিজিওথেরাপি চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে থাকতে হবে। পাশাপাশি ব্যায়ামও করতে হবে নিয়মিত।

Bellow Post-Green View