চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মৃত্যু কমছে, বাড়ছে সুস্থতা

কোভিড-১৯

গেল ১০ দিনে বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস ডিজিজ বা কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর মৃতের সংখ্যা ধীরে ধীরে কমে ১৬ শতাংশে নেমে এসেছে। সেই সাথে সুস্থতার সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮৩ শতাংশ।

গত মাসের শেষ দিন ৩০ এপ্রিল মৃত্যু হার যেখানে ছিল ১৮ দশমিক ৩৭ শতাংশ, সেখানে পরেরদিন ১ মে সেই সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ায় ১৮ দশমিক ১৫ শতাংশে। তবে পরের ১০ দিনের হিসাবে দেখা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ৯ মে মৃত্যু হার কমে হয় ১৬ দশমিক ৩৩ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

একইভাবে বেড়েছে কোভিড-১৯ আক্রান্ত সুস্থ রোগীর সংখ্যাও। ৩০ এপ্রিল সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৮১ দশমিক ৬৩ শতাংশ। ৯ মে সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৮৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

ওয়ার্ল্ডমিটারের হিসাবে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৪ হাজার ২২৮ জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। যা কয়েকদিনের আগের চেয়ে কম। শনিবার পর্যন্ত বিশ্বে কোভিড আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৯০ হাজার মানুষ। এছাড়াও একদিনে বিশ্বে সুস্থ হয়েছেন ৫৩ হাজার ৮২৩ জন রোগী।

বিজ্ঞাপন

অনেক জায়গায় কমলেও কোভিড-১৯ সংক্রমণে মৃত্যুর সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে ব্রাজিলে। সর্বশেষ একদিনেই দেশটিতে মারা গেছে ৬৬৪ জন। ল্যাটিন আমেরিকার দেশগুলোর মধ্যে ব্রাজিলে ভাইরাস সংক্রমণে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত।

যুক্তরাষ্ট্রে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে নতুন করে মারা গেছেন ১ হাজার ৪২২জন। এই মৃত্যুর মিছিলে যুক্তরাষ্ট্রে পরের দেশটি যুক্তরাজ্য। দেশটিতে একদিনেই মারা গেছে ৩৪৬ জন। রাশিয়া ১০৪, স্পেনে ১৭৯, ইতালি ১৯৪, ফ্রান্সে ৮০, কানাডা ১২৪, মেক্সিকো ১৯৯, ভারতে ১১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মহামারির চেয়েও ভয়ংকর রূপ নিয়ে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস গত ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের উহানে প্রথম শনাক্ত হয়। তবে এপ্রিলের শেষ থেকে মে মাসে চীনে করোনায় কোনো রোগী মারা যাওয়ার রেকর্ড নেই। তবে নতুন করে একজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

শনিবার দিবাগত রাত পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী কোভিডে মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৮০ হাজারের বেশি মানুষের। আর আক্রান্ত প্রায় ৪১ লাখ ১ হাজার ৫২৮ জন। সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছেন প্রায় ১৫ লাখ মানুষ।