চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মৃত্যুর ১৩ বছর পর মুক্তি পাচ্ছে মান্নার নতুন সিনেমা

১৩ বছর হয়ে গেল প্রয়াত হয়েছেন সুপারস্টার চিত্রনায়ক মান্না। তার মৃত্যুর এতবছর পরে এসেও মুক্তি পেতে যাচ্ছে এই নায়কের সর্বশেষ সিনেমা ‘জীবন যন্ত্রণা’। সিনেমাটির পরিচালক জাহিদ হোসেন চ্যানেল আই অনলাইনকে জানিয়েছেন, এটি মান্না অভিনীত সর্বশেষ ও নতুন সিনেমা। সেন্সর বোর্ড সম্প্রতি সিনেমাটি মুক্তির অনুমতি দিয়েছে।

২০০৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান মান্না। পরিচালক বলেন, মান্না মারা যাওয়ার আগে শুধুমাত্র মুক্তিযুদ্ধের একটি দৃশ্য বাদে তিনি বাকি সব কাজ শেষ করেছিলেন। ওই একটি দৃশ্য দেশের বাইরে থেকে ফিরে করে দিতে চেয়েছিলেন। দৃশ্যটি শেষ না করেই তিনি মারা যান। ওই দৃশ্যটি সিনেমার গুরুত্বপূর্ণ অংশ। পরে সেই দৃশ্য অন্যভাবে শেষ করি।

পরিচালক বলেন, ২০১০ সালের দিকে পুরো কাজ শেষ করে সেন্সরে সিনেমাটি জমা দেই। তখন সিনেমার নাম ছিল ‘লীলামন্থন’।

বিজ্ঞাপন

‘তৎকালীন সেন্সর বোর্ড সিনেমাটির ছাড়পত্রও দেয়। যেহেতু মুক্তিযুদ্ধের সিনেমা তাই মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের তিনজন প্রতিনিধি সিনেমাটি দেখে তিন জায়গায় সংশোধন দিয়েছিলেন এবং মন্ত্রণালয় থেকে চিঠি দেয়ার কথা ছিল। তিনমাস পরে মন্ত্রণালয়ে জটিলতায় তৈরি হলে সিনেমাটি আটকে যায়। পরবর্তীতে আমরা আপিল বিভাগের মাধ্যমে সেন্সর থেকে ছাড়পত্র নেই। ‘লীলামন্থন’ নাম বদলে রাখা হয়েছে ‘জীবন যন্ত্রণা’। প্রযোজক চাইছেন, ডিসেম্বর মাসেই প্রেক্ষাগৃহে সিনেমাটি মুক্তি দিতে।’

খোরশেদ আলম খসরুর প্রযোজনায় প্রয়াত নায়ক মান্না ছাড়াও সিনেমাটিতে অভিনয় করেন মৌসুম, পপি, আলীরাজ, মিশা সওদাগর। মুক্তিযুদ্ধ ও তৎকালীন যৌনপল্লীর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে নির্মিত হয়েছে সিনেমাটি। মান্না চলে যাওয়ার কারণে এতে নতুন করে দুটি চরিত্র যুক্ত করা হয়।

পরিচালক জাহিদ হোসেন বলেন, মান্নার শূন্যতার ফলে বাপ্পারাজ ও দীঘিকে নতুন করে সিনেমায় যুক্ত করা হয়। গল্পকে কিছুটা সংস্কার করেই প্রযোজকের ডিম্যান্ড অনুযায়ী বাপ্পারাজ-দীঘিকে নেয়া হয়। সিনেমা দেখলে বোঝা যাবে না যে তাদের পরে সংস্কার করে যুক্ত করা। মান্নার সবগুলো সিনেমা দেখেছি। তার ক্যারিয়ারে অন্যতম একটি সেরা সিনেমা হতো ‘জীবন যন্ত্রণা’।

প্রযোজক খোরশেদ আলম খসরু বলেন, যেহেতু মান্না অভিনীত এই সিনেমাটি মুক্তিযুদ্ধের তাই বিজয় দিবস, মাতৃভাষা দিবস অথবা স্বাধীনতা দিবস যেকোনো দেশাত্মবোধক দিবসে মুক্তি দিতে চাই।

বিজ্ঞাপন