চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মৃত্যুর আগে কী নিয়ে আফসোস করে মানুষ?

কখনো কি মৃত্যু শয্যাও কাউকে বলতে শুনেছেন, ‘ইশ, অফিসে যদি আরও সময় দিতে পারতাম!’ নিশ্চয়ই না। জীবনের শেষ প্রান্তে এসে মানুষ আসলে কী নিয়ে আফসোস করে তাহলে? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে একটি জরিপ চালিয়েছেন সাইকোলজির দুজন প্রফেসর। জরিপের ফলাফল চমকে যাওয়ার মতো।

বিজ্ঞাপন

ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয়স এর প্রফেসর মাইক মরিসন এবং নর্থ-ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি অব ইলিনয়স এর কেলোগ স্কুল অব ম্যানেজমেন্ট এর নেয়াল রয়েসের এই জরিপে জানা গেছে মানুষ জীবনের শেষ প্রান্তে এসে কিংবা মৃত্যু শয্যায় সবচাইতে বেশি আফসোস করে প্রিয় মানুষদের জন্য। ৩৭০ জন আমেরিকান পুরুষ এবং নারীর ওপর চালানো এই টেলিফোন জরিপের ফলাফলে এই তথ্য জানা গেছে।

জরিপে ১৮% অংশগ্রহণকারী জানিয়েছেন তারা পুরানো প্রেম, হারিয়ে ফেলা ভালোবাসার জন্য আফসোস করেছেন, ১৬% জানিয়েছেন পরিবারকে সময় দিতে না পারার আফসোসের কথা। এছাড়াও শিক্ষা (১৩%), ক্যারিয়ার (১২%), আর্থিক অবস্থা (১০%), অভিভাবকত্ব (৯%) এবং স্বাস্থ্য (৬%) নিয়ে আফসোস করেছেন অনেকে। অর্থাৎ প্রাক্তন প্রেম, হারিয়ে ফেলা ভালোবাসার মানুষ, পরিবার এবং অভিভাবকত্ব সব মিলিয়ে মোট ৪৩% মানুষ সম্পর্ক নিয়ে আফসোস করেছেন। অথচ পুরো জীবনের বেশিরভাগ সময় মানুষ ছোটে শিক্ষা এবং ক্যারিয়ারের পেছনে।

বিজ্ঞাপন

গবেষকদের মতে, মানুষের মজবুত, সুন্দর এবং স্থিতিশীল সম্পর্কের তৃষ্ণা থাকে। যখন সেটা পায় না, তখন মানুষ নিজেকে অসুখী মনে করে এবং আফসোস থেকে যায়।ভালোবাসা, পরিবার, বন্ধুত্বের সম্পর্কগুলো সুন্দর হলে এবং প্রিয় মানুষগুলোকে যথেষ্ট সময় দিলে স্বাস্থ্যও ভালো থাকে। বিষণ্ণতা কমে এবং হৃদপিণ্ড ভালো থাকে।

সবসময়ে কী নেই তার পেছনে ছুটতে থাকে মানুষ। কিন্তু কী আছে, সেটা হয়তো বুঝে ওঠার আগেই বেঁচে থাকার সময় ফুরিয়ে যায়। জীবনের শেষ প্রান্তে এসে তাই ফেলে আসা অপ্রাপ্তিগুলো নিয়ে আফসোস করে তারা। তাই শিক্ষা এবং ক্যারিয়ারকে প্রাধান্য দিতে গিয়ে ভালোবাসার মানুষগুলোকে অবহেলা করা উচিত নয়। নয়তো, জীবনের শেষ প্রান্তে এসে হয়তো আপনিও আফসোস করবেন।রিডার্স ডাইজেস্ট

Bellow Post-Green View