চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘যেখানেই থাকি, মুখে যেন হাসি নিয়ে বাঁচি’

একই সময়ে মিডিয়ায় কাজ করলে একে অন্যের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের চেয়ে পরস্পরের সহজ সম্পর্কের মাঝখানে উঠে ঈর্ষার দেয়াল। শুধু মিডিয়া নয়, প্রতিযোগিতামূলক যে কোনো ক্ষেত্রেই এমন অবস্থা দৃশ্যমান। অথচ একই সময়ে ছোটপর্দার শীর্ষ অবস্থানে থেকেও মোশাররফ করিম ও চঞ্চল চৌধুরীর বন্ধুত্বের কথা কারো অজানা নয়।

বেশ কয়েক বছর ধরেই বাংলা টেলিভিশন নাটকে দর্শকের পছন্দের তালিকায় সহঅবস্থানে মোশাররফ করিম ও চঞ্চল চৌধুরী। একসঙ্গে অসংখ্য কালজয়ী নাটকে যেমন তারা নিসংঙ্কোচে অভিনয় করেছেন, তেমনি রূপকথার গল্প, টেলিভিশনের মতো ছবিতেও অভিনয় করেছেন। বিশেষত টেলিভিশন ছবিতে এই জুটির অভিনয় দর্শকের মনে গেঁথে থাকবে বহুদিন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

আর সেই বন্ধুত্বের কথা যেনো আরো একবার স্মরণ করিয়ে দিলেন অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। শুক্রবার মোশাররফ করিমের সাথে নিজের অফিশিয়াল ফেসবুক থেকে কিছু কোলাজ ছবি শেয়ার করেন চঞ্চল।

বিজ্ঞাপন

শুধু তাই নয়, বন্ধুর সাথে অতীত মুহূর্তের ছবিগুলো দিয়ে চঞ্চল লিখেন, অতীত থেকে বর্তমান…! এভাবেই পৌঁছে যাওয়া প্রবল স্রোতে, সাঁতার কেটে কুলের কাছাকাছি…! যেভাবে,যেখানেই থাকি, মুখে যেন হাসি নিয়ে বাঁচি!

বললেন, পুরনো ছবি গুলো পেয়ে গেলাম। ভাবলাম দুই লাইন লিখি, বন্ধুর জন্য শুভ কামনা জানাই।

মোশাররফের সাথে চঞ্চলের এই পোস্ট মুহূর্তেই ছড়িয়ে যায় বাংলা নাট্যপ্রেমী দর্শকের কাছে। চঞ্চলের পোস্টটিতে রিয়েকশান পড়ে অন্তত ১ লাখ ৩০ হাজারের মতো। সেই সঙ্গে ৬ হাজারের মতো মন্তব্যও চোখে পড়ে। যেখানে সবাই এমন বন্ধুত্বের প্রশংসা করেন।

মোশাররফ ও চঞ্চল অভিনীত টেলিভিশনের অন্যতম জনপ্রিয় ধারাবাহিক ছিলো ঘরকুটুম ও সাকিন সারিসুরি। বৃন্দাবন দাসের রচনায় চ্যানেল আইয়ের জন্য নাটকগুলো নির্মাণ করেছিলেন সালাহ উদ্দিন লাভলু। অতীত সময়ের সেইসব অভিনয় শিল্পীদের নিয়ে আবারও চ্যানেল আইয়ের জন্য মেগা ধারাবাহিক নির্মাণের প্রস্তুতি নিচ্ছেন লাভলু। যেখানে আবারও হয়তো দর্শক পর্দার বাইরের দুই বন্ধু চঞ্চল ও মোশাররফকে একসঙ্গে পাবেন!

বিজ্ঞাপন