চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মুক্তি দেওয়া সেই হাইকোর্ট বেঞ্চেই হবে জাহালমের শুনানি

‘ভুল আসামি’ হয়ে প্রায় ৩ বছর কারাগারে থাকার পর যে হাইকোর্ট বেঞ্চের আদেশে মুক্তি পান পাটকল শ্রমিক জাহালম, সেই হাইকোর্ট বেঞ্চেই জাহালমের বিষয়ে জারি করা রুলের শুনানি হবে।

বিজ্ঞাপন

জাহালমকে মুক্তি দেওয়া হাইকোর্ট বেঞ্চে জাহালমের বিষয়ক রুল শুনানির এখতিয়ার নেই উল্লেখ করে দুদকের করা আবেদন সোমবার খারিজ করে দেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ।

বিজ্ঞাপন

আজকের এই আদেশের ফলে বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চেই জাহালম সংক্রান্ত রুলের শুনানি হবে বলে জানান আইনজীবীরা।

এর আগে হাইকোর্টের যে বেঞ্চের আদেশে মুক্তি পান জাহালম সে বেঞ্চে জাহালমের ঘটনায় জারি করা রুলের শুনানিসহ সকল কার্যক্রম স্থগিত চেয়ে আবেদন করে দুদক।

দুদকের সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জাহালমকে মুক্তি দেওয়া ওই হাইকোর্ট বেঞ্চে জাহালম সংক্রান্ত রুলের শুনানি ১৩ মে পর্যন্ত স্থগিত করেন চেম্বার বিচারপতির আদালত। সেই সাথে ১৩ মে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চে বিষয়টি শুনানির জন্য নির্ধারণ করেন চেম্বার আদালত।

সেই ধারাবাহিকতায় সোমবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন বিচারপতির আপিল বেঞ্চ জাহালমের বিষয়টি উঠে। এরপর আদালত দুদকের আবেদনটি খারিজ করে দেন।

সোমবার আদালতে জাহালমের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এ এম আমিন উদ্দিন ও আইনজীবী অমিত দাশগুপ্ত। আর দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরসিদ আলম খান।

এর আগে ‘ভুল আসামি’ হয়ে ২৬ মামলায় প্রায় ৩ বছর কারাগারে থাকা পাটকল শ্রমিক জাহালমকে গত ৩ ফেব্রুয়ারি সব মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে মুক্তির নির্দেশ দেন বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ। সেই সাথে হাইকোর্ট রুল জারি করেন। রুলে জাহালমের আটকাদেশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চাওয়া হয়।

এইদিন হাইকোর্ট বলেন: জামিন দেওয়ার মাধ্যমেই এ বিষয়টির শেষ হয়ে যাচ্ছে না। এ ঘটনার পেছনের ঘটনা কী, কারা এর সাথে জড়িত তা খুঁজে বের করতে হবে।’ হাইকোর্টের দেয়া মুক্তির আদেশের কয়েক ঘণ্টা পরই কারাগার থেকে বের হন আলোচিত জাহালম।

এর আগে দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকায় ‘স্যার, আমি জাহালম, সালেক না’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘আসামির কাঠগড়ায় দাঁড়ানো লোকটির বয়স ৩০-৩২ বছরের বেশি না। পরনে লুঙ্গি আর শার্ট। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬-এ বিচারকের উদ্দেশে তাকে বারবার বলতে দেখা যায়, ‘স্যার, আমি জাহালম। আমি আবু সালেক না, আমি নির্দোষ। আবু সালেকের বিরুদ্ধে সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির ২৬টি মামলা হয়েছে। কিন্তু আবু সালেকের বদলে জেল খাটছেন, আদালতে হাজিরা দিয়ে চলেছেন এই জাহালম। যিনি পেশায় পাটকল শ্রমিক। এরপর তদন্ত করে দুদক বলেছে, জাহালম নিরপরাধ। একই মত দেয় জাতীয় মানবাধিকার কমিশন।’

পত্রিকায় প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনটি গত ২৮ জানুয়ারি হাইকোর্টের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অমিত দাশগুপ্ত। এরপর হাইকোর্ট স্বপ্রণোদিত হয়ে রুলসহ জাহালমকে মুক্তির আদেশ দেন।

Bellow Post-Green View