চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মুক্তিযুদ্ধে বহু প্রাণ বাঁচানো ডা. রথীন দত্ত আর নেই

মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে বহু প্রাণ বাঁচানো চিকিৎসক ডা. রথীন দত্ত মারা গেছেন।

সোমবার সকালে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতার টালিগঞ্জে নিজের বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৯ বছর। তিনি এক ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার স্ত্রী আগেই মারা গেছেন। ছেলে সোনাল দত্ত ও মেয়ে রাজশ্রী দত্ত যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী হওয়ায় তারা ফেরার পর বুধবার ডা. রথীন দত্তের শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হবে।

বিজ্ঞাপন

১৯৩১ সালে ভারতের আসাম রাজ্যের মঙ্গলদৈয়ে জন্মগ্রহণ করে ডা. রথীন দত্ত। এরপর স্কুল জীবন শেষ করেন উত্তর-পূর্ব ভারতের মেঘালয় রাজ্যের শিলংয়ে। এরপর ডিব্রুগড় মেডিকেল কলেজ থেকে ডাক্তারি পাস করেন এবং ডা. বিধান চন্দ্র রায়ের অধীনে ইন্টার্ন করেন। পরবর্তীতে এফআরসিএস ডিগ্রি নিতে লন্ডন পাড়ি জমান।

এরপর দেশে ফিরে ষাটের দশকে ত্রিপুরা রাজ্যে নিজের কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৯২ সাল পর্যন্ত সেখানেই রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিচালক ও বিশেষ সচিব পদে দায়িত্বরত থাকার পর অবসর গ্রহণ করেন তিনি। ওই বছরই ভারত সরকার চিকিৎসা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য ডা. রথীন দত্তকে পদ্মশ্রী উপাধিতে ভূষিত করে।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশ আসেন এই বিশিষ্ট চিকিৎসক। যুদ্ধের ৯ মাস মুক্তিযুদ্ধাসহ বহু ভারতীয় সেনাকে চিকিৎসা দিয়ে জীবন বাঁচিয়েছিলেন তিনি। এ অনন্য অবদানের জন্য ২০১২ সালে বাংলাদেশ সরকার ডা. রথীন দত্তকে ‘মুক্তিযোদ্ধা মৈত্রী সম্মাননা’ দেয়।

তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব বলেন, তিনি ত্রিপুরা স্বাস্থ্য পরিষেবার উন্নয়নে একজন কিংবদন্তি সার্জন এবং ভালো প্রশাসক ছিলেন। তার অবদান চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে।