চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মাশরাফীকে ‘টুপি খোলা’ অভিনন্দন মাহমুদউল্লাহর

খেলার সিদ্ধান্তে অটল ছিলেন মাশরাফী

শনিবার রাতের ম্যাচে ক্যাচ নিতে গিয়ে তালু ফেটে রক্ত ঝরে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার। সেলাই পড়ে ১৪টি। ৪০ ঘণ্টা পরই তিনি নেমে পড়েছেন বিপিএলের এলিমিনেটর ম্যাচে খেলতে। ব্যান্ডেজে মোড়ানো হাত নিয়ে করেছেন ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং। ঢাকা প্লাটুনের অধিনায়ক শেষে জানালেন, হাত ফেটে যাওয়ার পরই সিদ্ধান্ত নিয়ে নেন খেলবেন পরের ম্যাচটি।

বল হাতে খারাপ করেননি মাশরাফী। ৪ ওভারে দেন ৩৩ রান। ব্যাটিংয়ে নেমে শাদাব খানকে স্ট্রাইক দিয়ে দলীয় রান বাড়িয়ে নিতে রাখেন ভূমিকা। এক হাতে নেন ক্রিস গেইলের ক্যাচ। দল হারলেও নিজের সঙ্গে লড়াইয়ে জিতেছেন মাশরাফী!

শাদাবের করা ইনিংসের ১৫তম ওভারের তৃতীয় বলে ফাইন লেগে দাঁড়ানো মাশরাফী ডানদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে চার বাঁচানোর যে চেষ্টাটি করেছেন, তা ছিল দুর্দান্ত। পরের বলেই গেইল সুইপ করতে গেলে টপ এজ হয়ে বল আসে মাশরাফীর হাতে। অধিনায়ক দুই হাত না বাড়িয়ে ডান হাতে জমা করেন ক্যাচটি।

বিজ্ঞাপন

‘খেলার সিদ্ধান্ত যখন হাত ফেটেছে তখনই নিয়েছি। ক্যাচ চলে আসছে, সুযোগ ছিল না দুই হাত দেয়ার। জোরে বল আসলে কী হতো জানি না। কারণ খেলার মধ্যে অনেক সময় হাত চলে যায় বলের কাছে। বলটা একটু আস্তে ছিল, হয়ত সময় পেয়েছি ঠেকানোর।’

১৪ সেলাই নিয়ে ঢাকা প্লাটুনের অধিনায়কের মাঠে নামাই ছিল বিস্ময়ের। স্বাভাবিক থেকে পুরো ম্যাচ খেলে জাগিয়েছেন আরও বিস্ময়। চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ টুপি খোলা অভিনন্দন জানালেন প্রতিপক্ষ অধিনায়ককে।

‘মাশরাফী ভাইয়ের প্রতি হ্যাটস অফ। আমি হলে হয়ত খেলার কথা চিন্তাও করতে পারতাম না। অসাধারণ লেগেছে। দারুণ বোলিং করেছে। যে ক্যাচটা ধরেছে সেটি কিন্তু সহজ ছিল না। বল হাওয়ায় খুব ঘুরছিল।’

শেয়ার করুন: