চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মার্কিন সাংবাদিক পার্ল হত্যা: শেখের মৃত্যুদণ্ড প্রত্যাহারে আপিল করবে বাবা

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী গণমাধ্যম দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এশিয়া বিষয়ক ব্যুরোপ্রধান ড্যানিয়েল পার্লের হত্যাকাণ্ডের প্রধান অভিযুক্ত ব্রিটিশ বংশোদ্ভূত জঙ্গি আহমেদ ওমর সাঈদ শেখের মৃত্যুদণ্ড প্রত্যাহার ও তিন সহযোগীর খালাসের বিরুদ্ধে পাকিস্তান সুপ্রীম কোর্টে আপিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পার্লের বাবা জুডে পার্ল।

রোববার একটি ভিডিও বার্তায় এমন সিদ্ধান্তের কথা তিনি বলেন বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি।

বিজ্ঞাপন

২০০২ সালে ইসলামপন্থী সন্ত্রাসীদের বিষয়ে গবেষণা করতে পাকিস্তানে এসে খুন হন দ্য ওয়ালস্ট্রিট জার্নালের সাংবাদিক ড্যানিয়েল পার্ল। ওই হত্যাকাণ্ডের প্রধান অভিযুক্তর মৃত্যুদণ্ড খারিজ করে গত মাসে ৭ বছরের কারাদণ্ডের রায় দিয়েছে পাকিস্তান আদালত। এছাড়া তার সঙ্গে অভিযুক্ত আরো তিন জনকে খালাস দিয়েছে ওই আদালত।

বিজ্ঞাপন

ভিডিও বার্তায় জুডে পার্ল বলেন, ‘আমরা পরিবারের পক্ষ থেকে পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্টে আপিল করার আবেদন করেছি।’

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ‘‘আমরা কেবলমাত্র আমাদের ছেলের জন্যই নয়, পাকিস্তানের আমাদের প্রিয় বন্ধুদের জন্যও আমরা ন্যায়বিচারের পক্ষে দাঁড়িয়েছি যাতে তারা সহিংসতা ও সন্ত্রাসমুক্ত সমাজে বাঁচতে পারে এবং তাদের সন্তানদের শান্তি ও সম্প্রীতিতে বড় করতে পারে।’’

গত ২ এপ্রিল রায়ে ওমর সাঈদের মৃত্যুদণ্ড বাতিল করে ৭ বছরের কারাদণ্ড ঘোষণা করে আদালত। কিন্তু সে ১৮ বছর ধরে কারাগারে আছে। সেসময় তার আইনজীবী খাজা নাভিদের দাবি করেন, ওমর সাঈদ কিডন্যাপে জড়িত থাকলেও সেই যে হত্যা করেছে তার প্রমাণ আদালতের কাছে নেই। তাই তাকে শুধু কিডন্যাপের দায়ে ৭ বছর জেল দেয়া হয়েছে।

২০০২ সালের জানুয়ারি মাসে ড্যানিয়েল পার্ল ইসলামি সন্ত্রাসবাদ সম্পর্কে বিস্তারিত গবেষণার জন্য করাচিতে আসেন। পরে তাকে অপহরণ করে করাচিতে শিরশ্ছেদ করা হয়। এক মাস পরে পার্লের শিরশ্ছেদের একটি ভিডিও মার্কিন কনস্যুলেটে পাঠানো হয়েছিল।

ওমর সাঈদকে ২০০২ সালে গ্রেপ্তার করা হয়। সন্ত্রাসবিরোধী আদালত তাকে মৃত্যুদণ্ড দেন। তার অন্য তিন সহযোগীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়।