চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মার্কিন বিমান হামলার তীব্র নিন্দা জানালো ইরান-ইরাক-রাশিয়া

ইরাক ও সিরিয়ায় ইরানের মিলিশিয়া বাহিনীর ঘাঁটিতে মার্কিন বিমান হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইরান, ইরাক ও রাশিয়া।

রোববারের ওই বিমান হামলায় ইরান সমর্থিত কাতাইব হিজবুল্লাহ (কেএইচ) সংগঠনটির অন্তত ২৫ সদস্য নিহত এবং অর্ধশতাধিক আহত হয়।

বিজ্ঞাপন

ইরাকের পশ্চিমাঞ্চলে এবং সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলে কাতাইব হিজবুল্লাহ (কেএইচ) দলের অস্ত্র ভাণ্ডার এবং অন্যান্য কমান্ড ও নিয়ন্ত্রণ স্থাপনা লক্ষ্য করে রোববার এই হামলা চালানো হয়। এই গোষ্ঠীটিকে জঙ্গি সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র।

এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে ইরাকি প্রধানমন্ত্রী আদেল আবদেল মাহদি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের এই কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে ইরাকের সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন হয়েছে। ইরাককে এবার যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তার সম্পর্ক পুনর্বিবেচনা করে দেখতে হবে বলেও সোমবার তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন বলে জানায় বিবিসি।

এ হামলাকে ‘যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসবাদের সুস্পষ্ট উদাহরণ’ বলে আখ্যা দিয়েছে ইরান।

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্বাস মুসাভি বলেছেন, ওই হামলার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র স্পষ্টভাবে সন্ত্রাসবাদের প্রতি তাদের সমর্থন জানিয়েছে। এ ধরনের অবৈধ কর্মকাণ্ডের দায় এবং এর ‘বিপজ্জনক পরিণতি’ অবশ্যই ওয়াশিংটনকে ভোগ করতে হবে বলেও সতর্ক করেছেন তিনি।

এদিকে মার্কিন সেনাদের বর্বর আগ্রাসনের প্রতিশোধ নেয়ার অঙ্গীকার করেছে কাতাইব হিজবুল্লাহর এক শীর্ষ নেতা। এক বিবৃতিতে তিনি মার্কিন বিভিন্ন সেনাঘাঁটিতে আসন্ন দিনগুলোতে আরও হামলা চালানোর অঙ্গীকার করেন।

রাশিয়াও ইরাক এবং ইরানের সঙ্গে একমত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলার নিন্দা জানিয়েছে গার্ডিয়ান। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের প্রেস সচিব দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, ওয়াশিংটন এই হামলা চালানোর আগে রাশিয়াকে একবারও সতর্ক করেনি। তাদের সেনা সদস্যরাও কাছাকাছি ছিল।

এই সিদ্ধান্তকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ ও ‘হিতে-বিপরীত ফল আনবে’ উল্লেখ করে পেসকভ এসব কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যে চলমান অস্থিরতার আগুনে ঘি না ঢালতে সব পক্ষের প্রতি জোর আহ্বান জানান।

বিজ্ঞাপন