চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মার্কিন পার্লামেন্টে ট্রাম্প সমর্থকদের নজিরবিহীন তাণ্ডব, নিহত ১

মার্কিন কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশন চলার সময় যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্ট ভবনে (ক্যাপিটল বিল্ডিং) প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উগ্র সমর্থকদের নজিরবিহীন তাণ্ডবে পুলিশের গুলিতে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে।

এ কারণে নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনর অনুমোদন প্রক্রিয়া বিঘ্নিত হয়।

বিজ্ঞাপন

বুধবার সিনেট ও প্রতিনিধি পরিষদের যৌথ এ অধিবেশন চলার সময় ট্রাম্পের শত শত সমর্থক সেখানে ঢুকে পড়ে ভাঙচুর চালায়। পরিস্থিতি আরও খারাপের শঙ্কায় পুলিশ আইনপ্রণেতাদের সেখান থেকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়।

মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের সভাপতিত্বে শুরু হয় কংগ্রেসের ওই যৌথ অধিবেশন। আগেই ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল এ অধিবেশনেই ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট গণনা করে স্বীকৃতি দেওয়া হবে নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জয়।

এছাড়াও বিভিন্ন রাজ্যের ভোট বাতিল নিয়েও আলোচনা হবার কথা ছিল অধিবেশনে। সেখানেই হামলা চালায় ট্রাম্পের সমর্থকরা।

এই ঘটনার পর স্থানীয় সময় বুধবার বিকেল ছয়টা থেকে ওয়াশিংটনে কারফিউ ঘোষণা করেন সেখানকার মেয়র মুরিয়েল বাউজার।

বিজ্ঞাপন

সহিংস এই ঘটনার কিছুক্ষণ আগেই সমর্থকদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

সেখানেও তিনি ভোট জালিয়াতির মিথ্যা অভিযোগ করেন। পরে টুইটে তিনি তার সমর্থকদের শান্তি বজায় রাখতে ও ঘরে ফিরে যেতে বলেছেন।

ক্যাপিটল বিল্ডিংয়ে বিদ্রোহীদের অন্তত ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।  ওয়াশিংটন ডিসির মেট্রোপলিটন পুলিশ জানিয়েছে, পাঁচটি বন্দুক জব্দ করা হয়েছে তার মধ্যে হ্যান্ড গান ও লং গানও করা হয়েছে।

পুলিশ প্রধান রবার্ট কনটি জানান, যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা কেউ ওয়াশিংটন ডিসিতে বসবাস করে না।  কিছু আহত কর্মকর্তাকেও চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় ২৭০০ সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

জো বাইজেন সাধারণ শালীনতা বজায় রাখার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্টের কথার গুরুত্ব অনেক, তাতে তিনি যত খারাপ প্রেসিডেন্টই হন না কেন।’

“ভালো কথা বলে তিনি উৎসাহিত করতে পারেন আবার খারাপ কথা বলে প্ররোচিত করতে পারেন।”