চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মানহানির দুই মামলায় ব্যারিস্টার মইনুলের আগাম জামিন

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মানহানির দুই মামলায় তাকে ৫ মাসের আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিজ্ঞাপন

মইনুল হোসেনের করা জামিন আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি আবদুল হাফিজ ও বিচারপতি মহিউদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চ রোববার এই জামিন আদেশ দেন।

বিজ্ঞাপন

আদালতে ব্যারিস্টার মইনুলের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী জয়নুল আবেদীন।

এর আগে নারী সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টির দায়ের করা এক মানহানির মামলা এবং জামালপুরে দায়ের করা আরেকটি মামলায় রোববার ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে জামালপুরের আদালতে মানহানির মামলাটি করেন যুব মহিলা লীগের এক নেত্রী। এই দুই মামলায় জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন ব্যারিস্টার মইনুল।

গত ১৬ অক্টোবর মধ্যরাতে একাত্তর টেলিভিশনের নিয়মিত আয়োজন ‘একাত্তর জার্নাল’-এ রাজনৈতিক সংবাদের বিশ্লেষণ চলছিল। অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন উপস্থাপিকা মিথিলা ফারজানা। এতে অতিথি ছিলেন মাসুদা ভাট্টি ও সাখাওয়াত হোসেন সায়ন্ত। আলোচনায় স্টুডিওর বাইরে থেকে যুক্ত হন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন।

আলোচনার ফাঁকে মাসুদা ভাট্টির প্রশ্ন ছিল, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি আলোচনা চলছে, ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন ঐক্যফ্রন্টে জামায়াতের প্রতিনিধিত্ব করছেন কিনা?

এর জবাবে ব্যারিস্টার মইনুল বলেন, ‘আপনার দুঃসাহসের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। আপনি চরিত্রহীন বলে আমি মনে করতে চাই।’ এরপর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়াসহ সব জায়গায় তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। এরই ধারাবাহিকতায় দেশের অর্ধশতাধিক সম্পাদক এবং সিনিয়র সাংবাদিকরা মইনুল হোসেনকে প্রকাশ্যে ক্ষমা প্রার্থনার দাবি জানিয়ে বিবৃতি দেন।